অনিয়মিত মাসিকের কারণ ও প্রতিকার

মেয়েদের অনিয়মিত মাসিকের কারণ ও প্রতিকার

অনিয়মিত মাসিক

অনিয়মিত পিরিয়ড বা মাসিক নিয়ে আমাদের অনেকেরেই এই একটা সমস্যাই পড়তে হয় । গর্ভ ধারনের সমস্যা ছাড়াও ওজন হ্রাস , স্ট্রেস , থাইরাইড সমস্যা মানসিক চাপ অতিরিক্ত ব্যায়াম , হরমোনের ভারসাম্য অর্থাৎ বিভিন্ন কারনে হঠা’ৎ করেই আপনার নিয়মিত মাসিক অনিয়মিত ভাবে হতে পারে ।

অনিয়মিত মাসিকের কারণ সমূহঃ

  • শরীরে ইস্ট্রোজেন ও প্রজেষ্ট্রেরণ হরমোনের তারতম্যের কারনে মাসিক আনিয়মিত হয়ে থাকে ।
  • অতিরিক্ত ব্যায়াম অথবা ব্যায়াম হিনতার কারনে অনিয়মিত হতে পারে ।
  • এছাড়া , মেনটাল প্রেসার বা মানসিক চাপের কারনে অনিয়মিত হয়ে থাকে ।
  • জড়ায়ু দূর্বলতার কারনে
  • হঠাৎ করে জন্মনিয়ন্ত্র পিল খাওয়া বন্ধ করে দিলে ।
  • শরীরে রক্ত শূন্যতা বা এ্যানিমিয়ার ফলে
  • শরীরে অস্বাভাবিক ওজন হ্রাস- বৃদ্ধির তারতম্য ঘটলে
  • এছাড়াও সহবাসের সময় পুরুষের শরীর থেকে আসা বিভিন্ন রোগ যেমন – গনোরিয়া , সিফিলিস ইত্যাদি এর
  • ফলে মাসিক অনিয়মিত হতে পারে ।
মাসিককে নিয়মিত করতে দেখুন আমাদের ঘরোয়া টিপসঃ
পিরিয়ড কে নিয়মিত করতে আদা বেশ গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে । তাই জেনে নেই আদার ব্যবহার ।

আদাঃ এক কাপ পানিতে ২ চা চামুচ আদা কুচি কুচি করে কেটে ৭-৮ মিনিট ধরে সিদ্ধ করে নিয়মিত ৩ বেলা এই আদা মিশ্রণটি খাওয়া যেতে পারে ।

আদা

আপেল সাইডার ভিনেগারঃ  প্রতিদিন খাবার আগে ৩-৪ টেবিল চা চামচ আপেল সাইডার ভিনেগার পানির সংমিশ্রণে পান করুন । এটি রক্তের ইনসুলিন ও ব্লাড সুগার কমিয়ে দেয় । যা মাসিক ‍নিয়মিত করে দেয় ।

ভিনেগার

ভিনেগার

তিলঃ  তিল আমাদের শরীরে সাধারণত হরমোন তৈরি করে থাকে । তিলের গুড়া প্রতিদিন সকালে খালিপেটে পানি মিশিয়ে খেতে পারেন। একটু স্বাদের জন্য চাইলে গুড় অথবা চিনি মিশিয়েও খেতে পারেন ।

 তিল

টক জাতীয় ফল : তেতুঁল মেয়েদের জন্য সর্বোচ্চ লোভনিয় ফলের মধ্যে অন্যতম । তাই অনিয়মিত মাসিক কে নিয়মিত করতে তেতঁলের জুড়ি মেলা ভাড় । তাই চিনি বা গুড় মেশানো পানিতে ২-৩ গ্রাম তেতুঁল এক ঘন্টা ধরে পানিতে ভিজিয়ে রাখুন এরপর লবণ ও জিড়া গুঁড়া মিশিয়ে ‍ুদিনে অন্তত ২ বার পান করুন । এই উপাদান টি আপনার অনিয়মিত মাসিক কে নিয়মিত করতে সাহায্য করবে ।

ব্যয়াম : ব্যায়াম এর কারনে পেশী সাধারণত বাধা পেয়ে থাকে । যার ফলে পেশী সংকোচন শুরু করে । শরীরে রক্ত সঞ্চালন কমিয়ে দেয় । পিরিয়ড শেষ হবার পরে ব্যায়াম করলে পরবর্তিতে সঠিক সময়ে মাসিক হওয়ার সম্ভবনা থাকে ।

আমাদের পূর্ববর্তী পোস্ট যদি মিস করে থাকেন তাহলে নিম্নোক্ত লিংক থেকে সরাসরি ভিজিট করতে পারেন।

অন্যান্য উপাদান :

  • আঙ্গুর ফল বা আঙ্গুরের জুস খেতে পারে ।
  • করলার রস
  • কাচাঁ পেপেঁ
  • ধনিয়া পাতা বা ধনিয়া পাতার গুঁড়া ।
  • সিদ্ধ ডুমুরের পানি ছেকে পান করা ।

 

পিরিয়ডের আগে অর্থাৎ অন্তত ২ সপ্তাহ আগে আখের রস পান করাঃ
এছাড়াও শরীরে আয়রণ জনিত অভাবে মিনস অনিয়মিত হয়ে থাকে তাই প্রচুর পরিমানে আয়রন জাতীয় খাবার খেতে হবে । তার পাশাপাশি আমিষ খাবার ও খেতে হবে । অতেএব, মাংস জাতীয় খাবারের পাশাপাশি ডিম, চিংড়ি , গুড়া মাছ , পালং শাক , মিষ্টি আলু , বাধা কপি , ফুল কপি , তরমুজ , খেজুর , ডাল , মটরশুটি , শষ্যদানা ইত্যাদি ।
খাদ্যাভাস : এই অনিয়মিত মাসিক সমস্যা যদি প্রায়ই ভুগতে থাকেন তাহলে আপনাকে বুঝতে হবে যে আপনাকে খাদ্যাভাস পরিবর্তন করতে হবে । তাই আপনার খাদ্য মেনুতে প্রচুর পরিমাণে শাক সবজি ও ফলমূল রাখুন । ফলের মধ্যে আনারস অনিয়মিত মাসিককে নিয়মিত করতে বিশেষ অবদান রাখে ।

সতর্কতাঃ জানা দরকার উপোরিক্ত পদ্ধতি গুলার সবার নিকটই গ্রহনযগ্যতা রাখে না । শুধুমাত্র যারা নন গর্ভবতি মহিলা তাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য । যারা বিবাহিত তাদের আগে নিশ্চত হতে হবে তারা প্রেগনেন্ট কি না ।

১. পিরিয়ড কী ও সুস্থ প্রজননের জন্য পিরিয়ডের সময় কি করণীয়

২. How to hack wifi password without root

3. How to use youTube Copyright Match Tool

4. About the foundry and pattern question and answer

5. Important Parts of an Internal Combustion Engine

6. What is Welding & Classification of welding methods

7. IDM full version free download with Serial Key Crack