চুল পড়ার আদি কারণ ও প্রতিকার সমূহ

চুল পড়ার আদি কারণ ও প্রতিকার সমূহ

চুল পড়ার আদি কারণ ও প্রতিকার সমূহ

আমাদের সবার পরিচিত এবং কমন রোগ যেটা কমবেশি সবারই দেখা যায় তা হল চুল পড়া। তবে যাদের বয়স ৪০+ হয়ে গেছে, তাদের চুল পড়া স্বাভাবিক। কিন্তু এখন বেশির ভাগই মানুষ দেখা যায় যাদের বয়স ১৮ না হতেই চুল পড়া শুরু হয়ে যায়। তখন এ বয়সের ছেলে মেয়েদের অনেক খারাপ লাগে। ফলে আস্তে আস্তে তারা যে টাক মাথার অধিকারী হচ্ছে এটা অনুধাবন করতে পেরে তারা ছুটে যাচ্ছে ডাক্তার এর পরামর্শ নিতে অথবা বিভিন্ন কিছু মেখে মেখে রোধ করার চেষ্টা করছেন। আপনার কাছে আমার প্রশ্ন হলো এসব করে কী লাভ হয়েছে বলেন? যদি এসব করে কোন প্রতিকারই হতো তাহলে বিশ্বের অনেক নামীদামী লোকগণ কখনো চুল হারাতেন না। যেমনঃ নরেন্দ্র মোদী, ড্রনাল্ট ট্যাম্প, বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আব্দুল মাল মোহিত ইত্যাদি।

চুল পড়া রোধ অর্থাৎ টাক থেকে সমাধান পেতে আপনাকে খুঁজতে হবে কেন চুল পড়ে এবং কি কি করলে চুল পড়া থেকে রেহাই পাবেন ইত্যাদি। এখানে আমি আগে আমার দেয়া সমাধানের কথা বলব! কেনো আমার মাথার চুল পড়েছে এবং কিভাবে বন্ধ করতে পেরেছি।

আমি প্রথমে যে প্রশ্ন টা নিজেকে করেছি, তা হলো আমার কোন সময়তে বেশি চুল পড়ল ঠিক তার একদিন আগ পর্যন্ত চিন্তা করেছি, আমি কি কি কাজ করেছি, গোসল কোথায় করেছি, কি শ্যাম্পু দিলাম, আগে কোন শ্যাম্পু দিতেছিলাম, কয়দিন পরপর দিতাম, তাছাড়া বৃষ্টিতে মাথা ভিজেছে কিনা ইত্যাদি।

চুল পড়ার কারণ সমূহঃ

যখন আমার মাথা থেকে প্রতিদিন ১০০-১৫০ টি চুল পড়ল, তখন আমি আরো চিন্তিত হয়ে গেলাম। কী করব? ডাক্তার দেখব নাকি? তখন বিশ্বের সেরা মানুষদের কথা মনে পড়ল। তাদের টাকা থাকতেও কেনো তারা টাকলু মাথা। তারপর আমি উপরোক্ত বিষয়াবলী চিন্তা করে বের করলাম যে কোন সময়গুলোতে আমার বেশি চুল পড়ে।

প্রথম কারণঃ যেটা অনুভব করেছি, যখন আমি অধিক পরিশ্রম অথবা অত্যান্ত ঘেমেছি, তখন মাথাও ঘেমেছে। আমরা সবাই জানি, ঘামের সাথে প্রচুর লবণ বের হয়। এজন্য সাথে সাথে মাথা না ধুলে এ ঘামের জন্য চুল পড়ত। এটা বন্ধ করেছি ফলে আমি ভাল ফল পেয়েছি।

দ্বিতীয় কারণঃ আমি দ্বিতীয়ত্ব লক্ষ্য করেছি যখন বৃষ্টিতে ভিজতাম তারপর অনেক চুল ঝরে পড়ত। হয়তো সবার বৃষ্টির পানি সহ্য হয়না তেমনি হয়তো আমারও। তাই সহজে বৃষ্টিতে ভিজিনা। বিশেষ করে মনে রাখবেন মেঘের প্রথম বৃষ্টিতে পানির সাথে এসিড থাকে। তাই কিছুক্ষণ বৃষ্টি হয়ে গেলে আর সমস্যা নাই।

তৃতীয়ত্বঃ মাঝে মাঝে শ্যাম্পু চেন্জ করতাম এবং ঘনঘন ব্যবহার করতাম। এজন্য খেয়াল করেছি আমার চুল বেশি ঝড়ে পড়তেছে। তারপর আমার চুলের সাথে সবচেয়ে বেশি যে শ্যাম্পু ম্যাচ করে সেটাই ব্যবহার করি। কিন্তু মনে রাখবেন, প্রতিদিন শ্যাম্প ব্যবহার করবেন না। এতে করে মাথার ত্বক নষ্ট হবার সম্ভাবনা তো আছেই, তার সাথে চুল বেশি পড়ার কারণ হতে পারে।

যাহোক, প্রিয় পাঠক উপরোক্ত সব গুলো কারণ এবং সমাধান একান্তই আমার নিজের সমস্যা ও সমাধান। তবে আমি আরো কিছু সমস্যার কারণ ও সমাধানের উপায় নিম্নাক্তে তুলে ধরলাম আশা করি মনোযোগের সহিত পাঠ করবেন এবং উপকৃত হইতে পারেন ইনশাল্লাহ।

অল্প বয়সে চুল পড়ার কারণ সমূহঃ

প্রিয় বন্ধুগণ, যদি আপনার অল্প বয়সে বেশি চুল পড়তে থাকে তবে এ ধরণের চুল পড়াকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় অ্যান্ড্রোজেনিক অ্যালোপেশিয়া বলা হয়ে থাকে। এটার লক্ষণ হচ্ছে আপনার কপাল দুপাশের রগের কাছ থেকে।আস্তে আস্তে মাথার সামনের দিকে এরপর ক্রমশ মাথার পিছনের দিকে ছড়িয়ে পড়ে। এভাবে টাক মাথায় পরিণত হয়। তবে অনেকেই ধারণা করে থাকেন যে, বংশগত কারণ, বয়ঃসন্ধিকাল অথবা থাইরয়েড গ্রন্থির শুকানোর জন্য হয়ে থাকে।

কি কি কারণে মাথার চুল পড়ে যায়?

এবার জেনে নিন যে গুলো কারণে আপনার নিয়মিত চুল ঝরে পড়ে। উপরের কারণ সমুহ ছিল আমার নিজের। তাই আমার সাথে আপনার চুল পড়ার কারণ এক মিল থাকতে নাও পারে। তাই নিচের কারণ সমূহ আপনার পড়ে নেওয়া উচিত। কারণ সমূহ হলঃ

১. অ্যান্ড্রোজেনিক হরমোন:- অ্যান্ড্রোজেনিক হরমোন পুরুষের টাকের সবচেয়ে বড় কারণ। সেই সাথে নারীদের চুল পড়ার কারণও বটে। তবে পরীক্ষা করে দেখা গেছে এই হরমোন সাধারণত নারীদের চেয়ে পুরুষের শরীরে বেশি পরিমাণে থাকে। যেসব পুরুষের শরীরে এই হরমোনের প্রভাব বেশি থাকে, সেসব নারী ও পুরুষের বেশি করে চুল পড়ে।

২. মাথার ত্বকের সোরিয়াসিস:- মাথায় যদি ছত্রাক সংক্রমণ বা খুশকি হলে চুল বেশি পড়ার অন্যতম কারণ। তবে এটার সমাধানের জন্য আপনি খুশকিনাশক বা ছত্রাকরোধী শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন। এতে যদি সঠিক ভাবে উপকৃত না হন তবে তার জন্য ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খেতে পারেন। সংক্রমণ ভালো হয়ে গেলে তখন আর খুশকি নাশক শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না। তবে মাথার ত্বকের সোরিয়াসিস ভাল হলে চুল আবার গজায়।

৩.  পুষ্টির অভাব:- শরীরের যদি পুষ্টির ঘাটতি পড়ে তবে এর ওপরও চুলের স্বাস্থ্য নির্ভর করে। দৈনিক খাবার তালিকায় শর্করা, আমিষ, স্নেহ, চর্বি,  খনিজ ও ভিটামিন পরিমিত পরিমাণে না খেলে চুলের পুষ্টি ঘাটতি দেখা যায় তখন চুল পড়ে যায়। তাছাড়া দেহে দীর্ঘদিন যাবৎ কোনো একটি উপাদানের অভাবে থাকলে চুল পড়ে যায়।

চুল পড়া কমানোর উপায় সমূহঃ আমি মনে করি, উপরোক্ত কারণ সমূহি এর চিকিৎসা করে লাভ নেই। এতে আপনার টাকা নষ্ট হবে মাত্র। তাই আমি যে সমাধান দিয়েছি তা পালন করলে ইনশাল্লাহ ভাল হবে। এই পোস্টটি সম্পর্কে আপনার কোন উপদেশ অথবা কোন প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই মতামত দিবেন।

Thanks,

Study Based

আরো পড়ুনঃ

অল্প বয়সে চুল পাকার কারণ ও প্রতিকার

পিঠা উৎসব এবং বাংলাদেশের পিঠা

পিঠা উৎসব এবং বাংলাদেশের পিঠা

পিঠা বা কেক কী? বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রকার পিঠাঃ

পিঠা বা পিঠে বাংলাদেশের নিজস্ব ঐতিহ্যবাহী লোভ নিয় খাবারের মধ্যে অন্যতম । পিঠা বা পিঠে তৈরি হয় আটা বা চালের গুঁড়া, ময়দা অথবা অন্য শষ্য জাতীয় দানা বা তার উপাদান দিয়ে যা বাঙ্গালির নিজস্ব আদিম ঐতিহ্য কে বহন করে আসছে। তবে প্রকৃতি ও অঞ্চলভেদে পিঠার বৈচিত্রতা লক্ষ করা যায়। গ্রাম দেশে সাধারণত নতুন ধান কাঁটার পর পিঠা পুলির আয়োজন করা হয়। সব থেকে শীত মৌসুমে বেশি পিঠা তৈরি করা হয়। সাধারণত শীতের সময় অর্থাৎ পৌষ পার্বন পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে পালিত একটি লোক উৎসব। যা পৌষ সংক্রান্তিতে পালন করা হয় এই দিনে রকমারি পিঠা প্রস্তুত করে। পিঠা সাধারনত মিষ্টি স্বাদ যুক্ত হয়ে থাকে তবে- জাতিভেদে টক , ঝাল বা অন্য যে কোন স্বাদ যুক্ত হয়ে থাকে।

পিঠা ও প্রকৃতিঃ

গ্রামের আকাঁবাকা মেঠো পথে খেঁজুরের রস, সাদা কুঁয়াশার ঘোমটা, ভোরের নতুন রবীর হালকা আভা আর সেই সাথে মায়ের হাতে বানানো নতুন ধানের চালের গুঁড়ার তৈরি পিঠা এ যেন সত্যি এক রোমাঞ্চকর দৃশ্য। তবে বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন ধরনের পিঠার তারতম্যের কারণে বাংলার ভিন্ন ভিন্ন পিঠা ভিত্তিক সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। আর সেই সাথে শীতের আনাগোনায় পিঠের আধিক্য অনেকাংশেই বেড়ে যায়। তাই অনেকেই শীতকে পিঠার মৌসুম ও বলে থাকে।

পিঠাঘর কী?

শহুরে কর্মব্যস্তময় মানুষের পিঠার চাহিদা মেটাতে তৈরি হয়েছে পিঠাঘর। তার কারন শহর অঞ্চলে দিন দিন বেড়েই চলছে পিঠার জনপ্রিয়তা। শহরে ৮০ শতাংশ মানুষই গ্রাম থেকে ভিড় জমিয়েছে কর্মের জন্য শহরে। তাই হালকা কুয়াশার চাদর ও হিমেল হাওয়া দেখলেই পিঠার প্রতি লোভ হয়। তাই এই লোভ কে সংবরণ করতে শহরে বিভিন্ন রেষ্টুরেন্ট থেকে শুরু করে অলিতে গলিতে গরে ওঠে অসংখ্য পিঠার দোকান। কর্ম ব্যস্ততাময় জীবনে নিজ হাতে পিঠা বানানো ভার ভেবেই পিঠা ক্রেতার ভরসা এখন এসব ভ্রামমাণ পিঠা দোকান বা পিঠে ঘরের উপর।

সংস্কৃতি অঙ্গনে পিঠাঃ

বাঙ্গালীর আদী ইতিহাস এবং ঐতিহ্যে পালন করে আসতেছেন প্রাচীনকাল ধরেই, তাই নবান্ন পিঠা-পুলির গুরুত্ব অপরিসীম। এটা বিাঙ্গালীর সংস্কৃতির লোকজ এবং নান্দনিক বহিঃপ্রকাশ। আমরা জানি সাধারণত, শীতকালেই পিঠার সমারোহটা এবং পিঠা তৈরির ধুম পড়ে যায় অনেক বেশি। পিঠা বা কেক বাঙ্গালরি মুখরোচর এবং আদরীণ ও অথিতি আপ্পায়ন খাবার। ফলে এই পিঠার দাওয়াতে আত্মীয় স্বজনের সাথে সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হতে থাকে। বিভিন্ন উপাদান এবং উপায়ে পিঠা তৈরি করা যায়। আমাদের দেশে একশ পঞ্চাশেরও বেশী রকমের পিঠা থাকলেও আমাদের অঞ্চল ভেদে ত্রিশ রকমের পিঠার প্রচলন বেশি আছে। আমাদের দেশে অঞ্চল ভেদে বিভিন্ন ধরণের পিঠা প্রচলন থাকলেও চিতই পিঠা, nokshi pitha, ডিম চিতই পিঠা, পাটিসাপটা পিঠা, তেল পিঠা, ভাঁপা পিঠা, পাতা পিঠা, pithe puli, নকশি পিঠা ইত্যাদি আরো শতরকমের পিঠা।

পিঠা উৎসব কী এবং কেন পালন করা হয়?

আমাদের যান্ত্রিক এই নগর জীবনে ভুলতে বসেছেন বারো মাসের তেরো পার্বণের কথা ।এই বাংলাদেশের সংস্কৃতির অনন্য ঐতিহ্য হচ্ছে পিঠার স্বাদ। এই পিঠার স্বাদ ও কীভাবে তৈরি করতে হয়, তা আস্তে মানুষ ভুলতে শুরু করেছে। কারণ, মানুষ কাজের প্রতি বেশি ঝুঁকে পড়েছে। তাই আমাদের গ্রামবাংলার এই চিরন্তন সংস্কৃতির ঐতিহ্যকে তুলে ধরতে আয়োজন করা হয়ে থাকে ‘জাতীয় পিঠা উৎসব । এ পিঠা উৎসব পালন করার জন্য তৈরি করা হয়েছে জাতীয় পিঠা উৎসব পরিষদ। আর এ উদযাপন পরিষদ এবার আয়োজন করেছিলেন ‘জাতীয় পিঠা উৎসব-১৪২২। এ পিঠা উৎসবে ছিল মোট ৩৩টি স্টল। এসব স্টলে ১৬৮ ধরনের পিঠা ছিল।

প্রিয় ভিজিটর, আমাদের আজকের আর্টিকেলটি কেমন লেগেছে? আপনাদের মনে যদি প্রশ্ন থাকে এ আর্টিকেল সম্পর্কে। তাহলে কমেন্ট করে জানিয়ে দিন। আমাদের ইউটিউব চ্যানেল enzymerony সাবস্ক্রাইব করুন।

কিভাবে earnmines কয়েন বিক্রি করা যায়

কিভাবে earnmines কয়েন বিক্রি করা যায়

What is earnmines and how do works it?

প্রতিদিন ইউটিউব, গুগলে হাজারো শিক্ষিত বেকার  সার্চ করে থাকেন, online income কিভাবে করা যায়। কিভাবে online থেকে টাকা উপার্জন করা যায়। ঠিক তেমনি online money income করার জন্য প্রতি নিয়ত সবাই  online money making website অথবা money making apps খুঁজে থাকেন। এসব সাইট, অ্যাপসে কাজ করলে তারা সামান্য পেমেন্ট দিলেও কিছু দিন পরেই হারিয়ে যায়। কিন্তু আজ আমি এমন একটি সাইট সম্পর্কে জানাবো, যেখানে online jobs without investment ছাড়াই করতে পারবেন। এমন কি নিজের কাজ অন্যেদের দিয়েও করাতে পারবেন। বলতে পারি, এক ঢেঁলে দুই পাখি মারা।

হয়তো, ইতিমধ্যেই earn mines ওয়েব সাইট সম্পর্কে জেনেছেন। যারা এখনও ইনকাম থেকে বিরত অথবা পড়াশুনার পাশাপাশি সামান্য সময় ব্যয় করে টাকা ইনকাম করতে চান। তারা আর্নমাইনস ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারেন। এখানে earn mines দুই ধরণের ব্যক্তিদের সেবা দিচ্ছেন, যারা ইনকাম করতে চান তাদের জন্য এবং যারা বিভিন্ন সোশিয়াল মিডিয়া যেমনঃ youtube, facebook, twitter, Instagram, Blog ইত্যাদি নিয়ে কাজ করে থাকেন। কিন্তু এগুলো বুস্ট করার জন্য মাস্টার কার্ড, ভিসা কার্ড না থাকার কারণে কোনো অগ্রগতি লাভ করতে পারছেনা। ঠিক তাদের কথা মাথায় রেখে earnmines নিয়ে আসল একসাথে ইনকাম আবার পেইড সার্ভিস। তা বন্ধু আপনি পিছে থাকবেন কেন? আপনি আসতে পারেন এ ইনকামের পাল্টফর্মে। আগে সাইটটি ঘুরে আসুন তারপর সিদ্ধান্ত নিন। কিভাবে ইনকাম করবেন অথবা পেইড সার্ভিস গুলো উপভোগ করবেন, তা বিস্তারিত জানানো হয়েছে এই ভিডিওটিতে। সম্পূর্ণ ভিডিওটি।

কিভাবে earnmines কয়েন Sell করবেন?

স্যার আপনি কী? earn mines থেকে কয়েন ইনকাম করেছেন? যদি সরাসরি বিক্রি করতে চান? তাহলে আমাদের কাছে বিক্রি করতে পারেন। earn mines এর পেজে Sell করতে পারেন। আমি Social Media তে কাজ করে থাকি। তাই আমার নিজস্ব প্রয়োজনে কয়েন কিনে থাকি। তাহলে আমার কাজ আরো সহজ হয়। যাহোক, EARN MINES এর নিয়মানুসারে ৮৫০০ কয়েন= ১ ডলার। আমরা ১ ডলার= ৮০ টাকা করে দিয়ে থাকি। কয়েন বিক্রির টাকা আপনি বিকাশে নিতে পারবেন অথবা Flexiload হিসেবেও নিতে পারবেন। কয়েন পাঠানোর নিয়মঃ
1. earnmines.com-এ আপনার username ও password দিয়ে লগইন করুন
2. এরপর +More মেনুতে ক্লিক করার পর ২ নং-এ Transfer Coin মেনুতে ক্লিক করুন
3. Transfer Coin to ফাঁকা বক্সে enzymerony লিখুন। এরপর আপনার বিক্রিত কয়েনের পরিমাণ বসিয়ে দিন। তারপর Send করে দিন।

কয়েন পাঠানোর আগে আমাদের সাথে 01987-662762 নাম্বারে যোগাযোগ করুন। তাহলে সঙ্গে সঙ্গে টাকা পাবেন। ও হ্যাঁ কয়েন ট্রান্সফার করার জন্য earnmines ১৫% কয়েন কেটে নিবে। তাহলে ভাবছেন আপনার লাভ কী হলো? এখানে লাভ একটাই কয়েন বিক্রি করার পর পেমেন্ট পাবার জন্য ১ মাস অপেক্ষা করতে হবে না। টাকাও কম দিচ্ছি না ১ ডলার=৮০ টাকা। টাকা বিকাশে অথবা Flexiload নিতে পারবেন।

আমাদের কাছে কয়েন বিক্রি ও টাকার পরিমাণ সমূহঃ
২১২৫ কয়েন= ২০ টাকা
৩১৮৮ কয়েন= ৩০ টাকা
৪২৫০ কয়েন=৪০ টাকা
৫৩১৩ কয়েন= ৫০ টাকা
৬৩৭৫ কয়েন= ৬০ টাকা
৭৪৩৮ কয়েন= ৭০ টাকা
৮৫০০ কয়েন= ৮০ টাকা
৯৫৬৩ কয়েন= ৯০ টাকা
১০৬২৫ কয়েন= ১০০ টাকা

আপনারা যারা কয়েন বিক্রি করতে চান সরাসরি, তাহলে উপরোক্ত নীতি অনুযায়ী বিক্রি করতে পারবেন। কয়েন বিক্রি করার আগে অব্যশই আমার সাথে যোগাযোগ করবেন। এজন্য উপরের দিকে আমার ফোন নাম্বার দিয়েছি।

আর্ন মাইনস নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু কথা

এখন হয়তো অনেকেই ভাবছেন অথবা আর্নমাইনস টিম ভাবছেন, আমি কেন কয়েন ক্রয় করছি? এখানে গোপনীয়তার কিছুই নেই। আমি ডলারও কম দিতাছিনা। এখানে যাতে আর্নমাইনস ওযেবসাইটির প্রচার এবং সবার কাজ করার বিশ্বস্ততা পায়। তাই সবার কাজ করার আগ্রহ যাতে  বৃদ্ধি পায়, এজন্য সরাসরি পেমেন্টের ব্যবস্থা করলাম। তাই সবাইকে বলব আসুন সবাই কাঁধে হাত রেখে এক সাথে সাবলম্বী হই এবং একে অপরকে সহযোগিতা করি।

একটা কথা না বললেই নয় যে, যারা পেজ লাইক , ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করে কয়েন আয় করেছেন, তারা কখনও ঐসব পেজ এবং ইউটিউবকে আন সাবস্ক্রাইব করবেন না। মনে রাখবেন, কাউকে ঠকিয়ে কখনও জয়ী হওয়া যায় না। এখানে আর্নমাইনস এর মত সবার সমান কাজ করার জায়গা, সহযোগিতার জায়গায়। মনে রাখবেন, এখানে একদিকে আয়ও হচ্ছে পাশাপাশি নিজের সোসিয়াল সাইট গুলোর অগ্রসর হচ্ছে। এবং অপরকে সহযোগিতাও হচ্ছে। তাই বলব, কখনও হীনমন্যতার পরিচয় দিবেন না। আসুন একসাথে কাজ করি।

যেসব নতুন ভিউয়ার, যারা এখনও আমার চ্যানেল কে সাবস্ক্রাইব করেননি, তারা সাবস্ক্রাইব করে সাথে থাকুন। আপনাদের মনে যদি কোন প্রশ্ন জাগে অথবা জিজ্ঞাসা থাকে, তাহলে কমেন্ট করে জানাবেন।

How to fix this page is trying to load scripts from unauthenticated | study-based

Fix in 4 way “this page is trying to load scripts from unauthenticated”

প্রিয় দর্শক,

আশা করি অনেক ভাল আছেন। আপনি যখন বিভিন্ন ওয়েবসাইট ভিজিট করেন, তখন এই সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। অথবা আপনি “this page is trying to load scripts from unauthenticated sources”এই সমস্যায় পড়েছেন। আপনার ব্রাউজারের কনটেন্ট লিংক এর ডান দিকে এই সমস্যার চিহ্নটি দেখতে পাবেন।  তবে এতে ভয়ের কিছুই নেই। আজকের এই আর্টিকেল সম্পূর্ণ পড়ুন, তাহলে “script error fix” করতে পারবেন।

আমি গুগলে এই সমস্যাটি নিয়ে সমাধান খুঁজেছিলাম। অনেকেই “how to fix script errors” এই বিষয়ে সমাধান দিয়েছে। কিন্তু তারা এই বিষয়ে সঠিক সমাধান দিতে পারেনি। এটার কারণ হল, তারা  ” load scripts from unauthenticated sources” এই বিষয়টির উপর ধারণা করে সমাধান দিয়েছেন। আমার study based ওয়েবসাইটের একটি ওপেন করেছিলাম এবং হঠাৎ, লক্ষ্য করেছিলাম “no authentication” সমস্যাটি। অন্যদের দেওয়া সমাধান এর উপায় গুলো দিয়ে চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু কোনো সুভল পাইনি। আশা করি, সম্পূর্ণ আর্টিকেল uswitch করবেন।

আপনাকে প্রথমেই জানতে হবে what is a script error, এবং কেন হয়?  আপনারা হয়তো ভাবছেন, এটি chrome browser, firefox অথবা  browser এ ভাইরাস ধরেছে। কিন্তু বন্ধুরা আসলে এমনটা নয়। এটি ব্রাউজারের সমস্যা নয়, এটি হল আপনার ওয়েবসাইটের সমস্যা অথবা আপনি যে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করতেছেন। সেই ওয়েবসাইটটির সমস্যার কারণে, এধরণের সমস্যার সৃষ্টি হয়ে থাকে। আপনার যদি নিজের ওয়েবসাইটে এই সমস্যার সৃষ্টি হয়, তাহলে আস্তে আস্তে আপনি দর্শক হারাতে থাকবেন। দর্শকরা ভাইরাস আক্রমণের ভয়ে আপনার ওয়েবসাইটে দর্শক কখনোই আসবে না। এর ফলে, আপনার ইনকাম একেবারেই বন্ধ হয়ে যাবে। তাই, এই  script errors সমস্যাটার  সমাধান করা অত্যন্ত জুরুরী।

load scripts from unauthenticated

এছাড়াও আপনাকে নিচের বিষয় সমূহ জানা দরকার। যেমন:  proxy server site কী? Proxy server কীভাবে ওয়েবসাইটকে নিয়ন্ত্রণ করে?

proxy হচ্ছে এক ধরনের Network Server এটি কোনো ব্যবহারকারীর IP Address কে গোপন করে, ঐ প্রক্সির I.P দিয়ে ইউজারকে ইন্টারনেটের সাথে Conectect করিয়ে দেয়।এর ফলে user,  ইন্টারনেটে কোনো website browse করলে,  উক্ত সাইটে ইউজারের আইপির বদলে proxy সার্ভারের I.P থাকবে। উদাহরণ: মনে করুন আপনার  আইপি এড্রেস 44.444.444.22. আপনি যদি কোনো একটা প্রক্সি সার্ভার ব্যবহার করেন  এবং ওয়েব ব্রাউজ করেন,  যার আইপি এড্রেস হতে পারে  22.888.456.22. এইটি। কিন্তু আপনার  ভিজিটকৃত সাইটসমূহ আপনাকে  22.888.456.22  অর্থাৎ প্রক্সি সার্ভারের আইপি এড্রেস দিয়ে শনাক্ত করবে, এখানেই কিন্তু আপনার প্রধান  আইপি এড্রেসটি গোপন থাকছে।

What is proxy server

সমাধানের উপায় সমূহ:

প্রিয় দর্শক, “this page is trying to load scripts from unauthenticated sources” এই সমস্যা সমাধান 4 টি

উপায়ে করা যায়। বিভিন্ন ব্লগার এবং ওয়েব বিশেজ্ঞগণ বিভিন্ন ধরণের সমাধান দিয়েছেন। কিন্তু, আমি “load scripts from unauthenticated sources” সমস্যাটির সমাধান একটু ভিন্নভাবে দিয়েছি। আমি আশা করি, এটি আপনার সমস্যা সমাধান করবে। আপনি আরো ভাল করে বুঝে নেবার জন্য এই পোস্টটি পুনরায় শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ুন। অথবা, আমার ভিডিওটি সম্পূর্ণ দেখুন। আমি আশাবাদী আমার চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করে দিবেন এবং আমাদের সাথেই থাকবেন।

১. এন্টি ভাইরাস ব্যবহার: আপনার পিসিকে ও ব্রাউজারকে সবসময় সুস্থ রাখতে আপনার একটি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করা খুবই প্রয়োজন। যাতে ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় MALWARE, VIRUS, HIDDEN FILE পিসিতে প্রবেশ করতে না পারে। এগুলো আমাদের কম্পিউটারকে আস্তে আস্তে স্লো করে দিবে এবং পিসিকে একে বারেই অকেজো করবে। বাজারে বিভিন্ন কোম্পানির এন্টি ভাইরাস পাওযা যায়। এসব এন্টিভাইরাস আপনাকে কিনে ব্যবহার করতে হবে। এসব এন্টিভাইরাসকে পেইড ভার্সনও বলা হয়। এন্টিভাইরাস সরবরাহকারী কোম্পানি গুলোর মধ্যে AVG, AVAST, AVIRA, Kaspersky, Panda ইত্যাদি অনেক জনপ্রিয়।

হয়তো, এখন আপনি ভাবছেন, পেইড ভার্সন কেনার সামর্থ্য নেই, এটা বললে আমার ভুল হবে। এর কারণ হল: আমরা এখন ছাত্র। যাহোক, ফ্রিতে এন্টিভাইরাস ব্যবহার করতে পারবেন খুব সহজেই। কিছু কিছু কোম্পানি একমাসের জন্য ফ্রিতে এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করার সুযোগ দিয়ে থাকে। কিন্তু তারপর আবার কিনতেই হতে পারে। আপনি সারা বছর ফ্রিতে এন্টিভাইরাস ব্যবহার করার জন্য avira ব্যবহার করতে পারেন। আমি আমার পিসিতে ফ্রিতে সারা বছর অ্যাভিরা ব্যবহার করে থাকি। আপনি, আপনার পিসিকে সারা বছর সুস্থ রাখতে avira ব্যবহার করতে পারেন। কিভাবে avira ফ্রিতে ব্যবহার করতে হয়, তা জানার জন্য আমার ইউটিউবের ভিডিও দেখে আসতে পারেন।

২. Plugin Update Problem: আপনার ওয়েবসাইটে লগইন করুন এবং প্লাগিন সমূহ লক্ষ্য করবেন অথবা আপনার ড্যাসবোর্ড লক্ষ্য করুন, তাহলে হলুদ বর্ণের নোটিফিকেশন আপনাকে জানিয়ে দিয়েছে কি কি আপডেড দেওয়া প্রয়োজন। যাহোক, আপনার প্লাগিন গুলোকে আপডেট দিয়ে দিন সম্পূর্ণ ফ্রিতে। আপডেট দেওয়ার পর আপনার সাইটের যে কনটেন্ট সমূহের সমস্যা ছিল, সেই লিংকটি রিলোড দিন। আশা করি সমস্যার সমাধান হয়েছে। যদি একা না করতে পারেন তাহলে, আমাদের ইউটিউবের ভিডিওটি সম্পূর্ণ দেখুন।

৩. Theme Problem: আপনি যখন আপনার ওযেবসাইটে wordpress install করেছেন, তখন হয়তো  script সমূহ গুলো ভালো করে সাজানো হয়নি। তাই script গুলো আবার পুনরায চেক, আবার সাজিয়ে নিন। তাছাড়া, আপনার ওয়েবসাইটে ssl website সমস্যা থাকতে পারে। তাই এই সমস্যাটি সমাধানের জন্য ssl certification ভাল করে cpanel গিয়ে install করতে পারেন। যদি একা না করতে পারেন, তাহলে ইউটিউবের সাহায্যে নিতে পারেন। এই সমস্যাটা নিয়ে ইউটিউবে সার্চ করুন। আশা করি অনেক সমাধান খুঁজে পাবেন।

৪. Malwarebytes ব্যবহার করা: উপরোক্ত বিষয় গুলো দ্বারা যদি সমাধান না করতে পারেন। তাহলে আপনার ব্রাউজারে ভাইরাসের আক্রমণ হয়েছে। । এটা সহজেই দূর করা যায়না। এটা দূর করার জন্য গুগলের সাহায্যে নিতে হবে। গুগলের সার্চ অপশনে লিখুন I have chrome virus. এরপর সার্চ করুন।

তারপর একটু নিচের দিকে গুগলের একটি হেল্প লিংক খুঁজে পাবেন। যদি না পারেন তাহলে আমার ভিডিওটি সম্পূর্ণ দেখুন।

আশা করি বন্ধুরা, আপনাদের সমস্যাটি সমাধান হবে। আর্টিকেলটি আপনাদের কেমন লেগেছে? অব্যশই একটি কমেন্ট করবেন। আপনার কাছে যদি এর চাইতেও ভাল সমাধান থাকে, তাহলে অবশ্যই জানাবেন। বন্ধুরা আপনাদের শুভকামনা করছি।

ধন্যবাদ,

Study-based

আমাদের অন্যান্য পোস্ট সমূহঃ

1. How to download Adobe Audition CC 2019 for lifetime

2. How to activate Windows 10 with KMSpico_setup file 2018

3. Download adobe premiere pro cc 2018 full crack

4. Cyberlink powerdirector Ultimate 17 Activation For Lifetime

5. idm full version free download with Serial Key Crack

6. How to free download Star Filter and Star Spikes Pro Photoshop Plugin

অনিয়মিত মাসিকের কারণ ও প্রতিকার

মেয়েদের অনিয়মিত মাসিকের কারণ ও প্রতিকার

অনিয়মিত মাসিক

অনিয়মিত পিরিয়ড বা মাসিক নিয়ে আমাদের অনেকেরেই এই একটা সমস্যাই পড়তে হয় । গর্ভ ধারনের সমস্যা ছাড়াও ওজন হ্রাস , স্ট্রেস , থাইরাইড সমস্যা মানসিক চাপ অতিরিক্ত ব্যায়াম , হরমোনের ভারসাম্য অর্থাৎ বিভিন্ন কারনে হঠা’ৎ করেই আপনার নিয়মিত মাসিক অনিয়মিত ভাবে হতে পারে ।

অনিয়মিত মাসিকের কারণ সমূহঃ

  • শরীরে ইস্ট্রোজেন ও প্রজেষ্ট্রেরণ হরমোনের তারতম্যের কারনে মাসিক আনিয়মিত হয়ে থাকে ।
  • অতিরিক্ত ব্যায়াম অথবা ব্যায়াম হিনতার কারনে অনিয়মিত হতে পারে ।
  • এছাড়া , মেনটাল প্রেসার বা মানসিক চাপের কারনে অনিয়মিত হয়ে থাকে ।
  • জড়ায়ু দূর্বলতার কারনে
  • হঠাৎ করে জন্মনিয়ন্ত্র পিল খাওয়া বন্ধ করে দিলে ।
  • শরীরে রক্ত শূন্যতা বা এ্যানিমিয়ার ফলে
  • শরীরে অস্বাভাবিক ওজন হ্রাস- বৃদ্ধির তারতম্য ঘটলে
  • এছাড়াও সহবাসের সময় পুরুষের শরীর থেকে আসা বিভিন্ন রোগ যেমন – গনোরিয়া , সিফিলিস ইত্যাদি এর
  • ফলে মাসিক অনিয়মিত হতে পারে ।
মাসিককে নিয়মিত করতে দেখুন আমাদের ঘরোয়া টিপসঃ
পিরিয়ড কে নিয়মিত করতে আদা বেশ গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে । তাই জেনে নেই আদার ব্যবহার ।

আদাঃ এক কাপ পানিতে ২ চা চামুচ আদা কুচি কুচি করে কেটে ৭-৮ মিনিট ধরে সিদ্ধ করে নিয়মিত ৩ বেলা এই আদা মিশ্রণটি খাওয়া যেতে পারে ।

আদা

আপেল সাইডার ভিনেগারঃ  প্রতিদিন খাবার আগে ৩-৪ টেবিল চা চামচ আপেল সাইডার ভিনেগার পানির সংমিশ্রণে পান করুন । এটি রক্তের ইনসুলিন ও ব্লাড সুগার কমিয়ে দেয় । যা মাসিক ‍নিয়মিত করে দেয় ।

ভিনেগার

ভিনেগার

তিলঃ  তিল আমাদের শরীরে সাধারণত হরমোন তৈরি করে থাকে । তিলের গুড়া প্রতিদিন সকালে খালিপেটে পানি মিশিয়ে খেতে পারেন। একটু স্বাদের জন্য চাইলে গুড় অথবা চিনি মিশিয়েও খেতে পারেন ।

 তিল

টক জাতীয় ফল : তেতুঁল মেয়েদের জন্য সর্বোচ্চ লোভনিয় ফলের মধ্যে অন্যতম । তাই অনিয়মিত মাসিক কে নিয়মিত করতে তেতঁলের জুড়ি মেলা ভাড় । তাই চিনি বা গুড় মেশানো পানিতে ২-৩ গ্রাম তেতুঁল এক ঘন্টা ধরে পানিতে ভিজিয়ে রাখুন এরপর লবণ ও জিড়া গুঁড়া মিশিয়ে ‍ুদিনে অন্তত ২ বার পান করুন । এই উপাদান টি আপনার অনিয়মিত মাসিক কে নিয়মিত করতে সাহায্য করবে ।

ব্যয়াম : ব্যায়াম এর কারনে পেশী সাধারণত বাধা পেয়ে থাকে । যার ফলে পেশী সংকোচন শুরু করে । শরীরে রক্ত সঞ্চালন কমিয়ে দেয় । পিরিয়ড শেষ হবার পরে ব্যায়াম করলে পরবর্তিতে সঠিক সময়ে মাসিক হওয়ার সম্ভবনা থাকে ।

আমাদের পূর্ববর্তী পোস্ট যদি মিস করে থাকেন তাহলে নিম্নোক্ত লিংক থেকে সরাসরি ভিজিট করতে পারেন।

অন্যান্য উপাদান :

  • আঙ্গুর ফল বা আঙ্গুরের জুস খেতে পারে ।
  • করলার রস
  • কাচাঁ পেপেঁ
  • ধনিয়া পাতা বা ধনিয়া পাতার গুঁড়া ।
  • সিদ্ধ ডুমুরের পানি ছেকে পান করা ।

পিরিয়ডের আগে অর্থাৎ অন্তত ২ সপ্তাহ আগে আখের রস পান করাঃ
এছাড়াও শরীরে আয়রণ জনিত অভাবে মিনস অনিয়মিত হয়ে থাকে তাই প্রচুর পরিমানে আয়রন জাতীয় খাবার খেতে হবে । তার পাশাপাশি আমিষ খাবার ও খেতে হবে । অতেএব, মাংস জাতীয় খাবারের পাশাপাশি ডিম, চিংড়ি , গুড়া মাছ , পালং শাক , মিষ্টি আলু , বাধা কপি , ফুল কপি , তরমুজ , খেজুর , ডাল , মটরশুটি , শষ্যদানা ইত্যাদি ।
খাদ্যাভাস : এই অনিয়মিত মাসিক সমস্যা যদি প্রায়ই ভুগতে থাকেন তাহলে আপনাকে বুঝতে হবে যে আপনাকে খাদ্যাভাস পরিবর্তন করতে হবে । তাই আপনার খাদ্য মেনুতে প্রচুর পরিমাণে শাক সবজি ও ফলমূল রাখুন । ফলের মধ্যে আনারস অনিয়মিত মাসিককে নিয়মিত করতে বিশেষ অবদান রাখে ।

সতর্কতাঃ জানা দরকার উপোরিক্ত পদ্ধতি গুলার সবার নিকটই গ্রহনযগ্যতা রাখে না । শুধুমাত্র যারা নন গর্ভবতি মহিলা তাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য । যারা বিবাহিত তাদের আগে নিশ্চত হতে হবে তারা প্রেগনেন্ট কি না ।

১. পিরিয়ড কী ও সুস্থ প্রজননের জন্য পিরিয়ডের সময় কি করণীয়

২. How to hack wifi password without root

How to find wifi password without Root

How to find wifi password without root

আমরা সবাই চেষ্টা করেছি অন্যের wifi Password চুরি করে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে। তাই ইউটিউব, গুগলে অনেক সার্চ করেছি, কিভাবে connected wifi Password বের করা যায়। হাজারো ধরণের পোস্ট অনেকে অনেক ভাবে করেছে। যে কিভাবে connected wifi Password বের করা যায়। কিন্তু হাস্যকর বিষয় হল এতে আপনি সফল হতে পারেননি। যারা connected wifi Password বের করতে পারেননি, তাদের জন্যই এই পোস্টটি। পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন এবং প্রতিটি ধাপগুলো যথাযথ ভাবে অনুসরন করলে আশা করি 90% connected password হবেই। যদি সঠিক ভাবে বুঝতে না পারেন তাহলে আমার এই ভিডিওটি দেখলে আর কোন ধরণের সমস্যাই হবেনা, আপনার কাজটি সফল হবেই।

আসলেই connected wifi Password বের করতে পারবেন মাত্র 2 মিনিটেই। ওয়াই-ফাই পাসওয়ার্ড বের করার জন্য আপনাকে একটি অ্যাপস ব্যবহার করতে হবে। আমাদের এই পোস্টটির শেষের দিকে ডাউনলোড লিংক দেয়া থাকবে, সরাসরি সেখান থেকে ডাউলোড করতে পারবেন কোন রকম ঝামেলা ছাড়াই।আমি এটা প্রমাণ করেছি বিধায় আপনাদের জানানোর জন্যই আজকের এই পোস্টটি। এতে আমাদের কোন লাভ নেই।

যদি আপনার কাজটি সফল হয় তাহলে অব্যশই আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি Subscribe করে দিবেন। আমাদের চ্যানেলটি

ওয়াই-ফাই পাসওয়ার্ড বের করার  আরেকটি বিষয় হল আপনার হ্যান্ড সেটটি অব্যশই ব্র‌্যান্ডের সেট এবং মিনিমাম পনের হাজার টাকার উপরের হতে হবে। যদি তা না হয়, তাহলে সেটটিকে রুট করে নিতে হবে। হ্যান্ড সেটকে কিভাবে রুট করতে তা জানার জন্য গুগলে অথবা ইউটিউবে হাজারো রকমের ভিডিও খুজে পাবেন। সেগুলো দেখে শিখে নিয়ে আগে রুট করে নিন। তারপর আমাদের এই ট্রিক্সটি ব্যবহার করেন। কারণ, নিয়মগুলো যথাযথ না মেনে কাজ করেন তাহলে ওয়াই-ফাই পাসওয়ার্ড বের কোনদিনও হবেনা। তখন হয়তো খারাপ মন্তব্য করবেন। তাই নিয়মগুলো আগে পালন করুন।

Apps টি এখান থেকে Download করুন

Download Here……

Apps টি Download করার পরে নিচের ছবিটির মতই ইন্টারফেজ দেখাবে। তখন আপনি Scan নামক আইকনটিতে ক্লিক করে আগে স্কেন করে নিন। তীর চিহ্ন দ্বারা তা চিহ্নিত করে দেওয়া আছে।

এরপর আপনার এরিয়াতে থাকা wifi নেটওয়ার্ক গুলো নিম্নোক্ত ভাবে দেখাবে। তারপর যেটাকে হ্যাক করতে চান সেই নেটওয়ার্কে ক্লিক করুন। তারপর নতুন Scan দেখতে পাবেন। warning নোটিফিকেশন সো করবে, সেটাকে ক্লোজ করে দিন। এর পরের warning টা দেখালে তা yes করে দিন।

নিচের ছবিটিতে লক্ষ্য করুন অথবা আপনার সেটের Scan টিতে।

How find wifi password

Scan টির উপরের ডানদিকে দুটি অপশন দেখতে পাচ্ছেন তা টিক চিহ্ন দিয়ে দিন যেমন New Method এবং No Root। যদি উন্নতমানের ফোনসেট না হয তাহলে রুট করবেন। মনে করেন রুট করা আছে, তাহলে ফোন এর স্কিন এর বামপাশে Old Method and Root এ টিক চিহ্ন দিযে দিন্ এরপর Connect Automatic with try all pins অপশনে ক্লিক দিন।

এরপর wps Wpa Tester is trying to turn Wi-fi on Or off নোটিফিকেশন আসলে তা Allow করে দিন।

তারপর Connection Successful দেখাবে।

পোস্টটি ভাললাগলে সবার কাছে শেয়ার করবেন এবং আমাদের সাথে ইউটিউবে কানেক্ট থাকবে চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।