PROPERTIES AND STATE OF A SUBSTANCE

PROPERTIES AND STATE OF A SUBSTANCE

PROPERTIES AND STATE OF A SUBSTANCE
If we consider a given mass of water, we recognize that this water can exist in various forms. If it is a liquid initially, it may become a vapor when it is heated or a solid when it is cooled. Thus, we speak of the different phases of a substance. A phase is defined as a quantity of matter that is homogeneous throughout. When more than one phase is present, the phases are separated from each other by the phase boundaries. In each phase the substance may exist at various pressures and temperatures or, to use the thermodynamic term, in various states. The state may be identified or described by certain observable, macroscopic properties; some familiar ones are temperature, pressure, and density. In later chapters, other properties will

T H E R M O N E T

Be introduced. Each of the properties of a substance in a given state has only one definite value, and these properties always have the same value for a given state, regardless of how the substance arrived at the state. In fact, a property can be defined as any quantity that depends on the state of the system and is independent of the path (that is, the prior history) by which the system arrived at the given state. Conversely, the state is specified or described by the properties. Later we will consider the number of independent properties a substance can have, that is, the minimum number of properties that must be specified to fix the state of the substance. Thermodynamic properties can be divided into two general classes: intensive and extensive. An intensive property is independent of the mass; the value of an extensive property varies diectly with the mass.

Thus, if a quantity of matter in a given state is divided into two equal parts, each part will have the same value of intensive properties as the original and half the value of the extensive properties. Pressure, temperature, and density are examples of intensive properties. Mass and total volume are examples of extensive properties. Extensive properties per unit mass, such as specific volume, are intensive properties. Frequently we will refer not only to the properties of a substance but also to the properties of a system. When we do so, we necessarily imply that the value of the property has significance for the entire system, and this implies equilibrium.

For example, if the gas that composes the system (control mass) in Fig. 1.4 is in thermal equilibrium, the temperature will be the same throughout the entire system, and we may speak of the temperature as a property of the system. We may also consider mechanical equilibrium, which is related to pressure. If a system is in mechanical equilibrium, there is no tendency for the pressure at any point to change with time as long as the system is isolated from the surroundings. There will be variation in pressure with elevation because of the influence of gravitational forces, although under equilibrium conditions there will be no tendency for the pressure at any location to change. However, in many thermodynamic problems, this variation in pressure with elevation is so small that it can be neglected. Chemical equilibrium is also important and will be considered in Chapter 14. When a system is in equilibrium regarding all possible changes of state, we say that the system is in thermodynamic equilibrium.

Example of a control mass

Example of a control mass


Our previous Most Popular Post:

1. Introduction to Fundamentals of Thermodynamics

2. What is Electrode, Flux, Filler rod and Polarity

3. About the foundry and pattern question and answer

4. Important Parts of an Internal Combustion Engine

5. What is Welding & Classification of welding methods

6. IDM full version free download with Serial Key Crack

THERMODYNAMIC SYSTEM AND THE CONTROL VOLUME

A THERMODYNAMIC SYSTEM AND THE CONTROL VOLUME
Thermodynamic system

A thermodynamic system is a device or combination of devices containing a quantity of matter that is being studied. To define this more precisely, a control volume is chosen so that it contains the matter and devices inside a control surface. Everything external to the

 

Schematic diagram of a steam power plant     Schematic diagram of a steam power plant

 

control volume is the surroundings, with the separation provided by the control surface. The surface may be open or closed to mass flows, and it may have flows of energy in terms of heat transfer and work across it. The boundaries may be movable or stationary. In the case of a control surface that is closed to mass flow, so that no mass can escape or enter the control volume, it is called a control mass containing the same amount of matter at all times.

 

Schematic diagram of a refrigerator                                                                Schematic diagram of a refrigerator

 

Selecting the gas in the cylinder of Fig. 1.4 as a control volume by placing a control surface around it, we recognize this as a control mass. If a Bunsen burner is placed under the cylinder, the temperature of the gas will increase and the piston will move out. As the piston moves, the boundary of the control mass also changes. As we will see later, heat and work cross the boundary of the control mass during this process, but the matter that composes the control mass can always be identified and remains the same.

 

An isolated system

An isolated system is one that is not influenced in any way by the surroundings so that no mass, heat, or work is transferred across the boundary of the system. In a more typical case, a thermodynamic analysis must be made of a device like an air compressor which has a flow of mass into and out of it, as shown schematically in Fig. 1.5. The real system includes possibly a storage tank, as shown later in Fig. 1.20. In such an analysis, we specify a control volume that surrounds the compressor with a surface that is called the control surface, across which there may be a transfer of mass, and momentum, as well as heat and work.

 

Example of a control mass                                                                                         Example of a control mass

 

Thus, the more general control surface defines a control volume, where mass may flow in or out, with a control mass as the special case of no mass flow in or out. Hence, the control mass contains a fixed mass at all times, which explains its name. The general formulation of the analysis is considered in detail in Chapter 4. The terms closed system (fixed mass) and open system (involving a flow of mass) are sometimes used to make this distinction. Here, we use the term system as a more general and loose description for a mass, device, or combination of devices that then is more precisely defined when a control volume is selected. The procedure that will be followed in presenting the first and second

 

Example of a control volume                                                                       Example of a control volume

 

laws of thermodynamics is first to present these laws for a control mass and then to extend the analysis to the more general control volume.

Our previous Most Popular Post:

1. Introduction to Fundamentals of Thermodynamics

2. What is Electrode, Flux, Filler rod and Polarity

3. About the foundry and pattern question and answer

4. Important Parts of an Internal Combustion Engine

5. What is Welding & Classification of welding methods

6. IDM full version free download with Serial Key Crack

Introduction to Fundamentals of Thermodynamics

Introduction and Preliminaries

Fundamental Physical Constants

Avogadro                                                       N0 = 6.0221415×1023 mol−1

Boltzmann                                                        k = 1.3806505×10−23 JK−1

Planck                                                               h = 6.6260693×10−34 Js

Gas Constant                                                  R = N0 k=8.314472 J mol−1 K−1

Atomic Mass Unit                                       m0 = 1.66053886×10−27 kg

Velocity of light                                               c = 2.99792458×108 ms−1

lectron Charge                                               e = 1.60217653×10−19 C

Electron Mass                                            me = 9.1093826×10−31 kg

Proton Mass                                              mp = 1.67262171×10−27 kg

Gravitation (Std.)                                          g = 9.80665 ms−2

Stefan Boltzmann                                        σ = 5.670400×10−8 Wm−2 K−4

Mol here is gram mol.

Fundamental Physical Constants

             Prefixes:

                                     10−1                  deci                d

                                     10−2               centi                 c

                                     10−3               milli                  m

                                     10−6               micro                μ

                                     10−9               nano                 n

                                   10−12             pico                     p

                                   10−15             femto                 f

                                      101            deka                    da

                                      102            hecto                    h

                                      103               kilo                     k

                                     106             mega                    M

                                     109             giga                       G

                                  1012            tera                         T

                                  1015             peta                       P

PrefixesConcentration

The field of thermodynamics is concerned with the science of energy focusing on energy storage and energy conversion processes. We will study the effects on different substances, as we may expose a mass to heating/cooling or to volumetric compression/expansion. .During such processes we are transferring energy into or out of the mass, so it changes its conditions expressed by properties like temperature, pressure, and volume. We use several processes similar to this in our daily lives; we heat water to make coffee or tea or cool it in a refrigerator to make cold water or ice cubes in a freezer. In nature, water evaporates from oceans and lakes and mixes with air where the wind can transport it, and later the water may drop out of the air as either rain (liquid water) or snow (solid water). As we study these processes in detail, we will focus on situations that are physically simple and yet typical of real-life situations in industry or nature.

 

By a combination of processes, we are able to illustrate more complex devices or complete systems—for instance, a simple steam power plant that is the basic system that generates the majority of our electric power. A power plant that produces electric power and hot water for district heating burns coal, as shown in Fig. 1.1. The coal is supplied by ship, and the district heating pipes are located in underground tunnels and thus are not visible. A more technical description and a better understanding are obtained from the simple schematic of the power plant, as shown in Fig. 1.2. This includes various outputs from the plant as electric power to the net, warm water for district heating, slag from burning coal, and other materials like ash and gypsum; the last output is a flow of exhaust gases out of the chimney.

Another set of processes forms a good description of a refrigerator that we use to cool food or apply it at very low temperatures to produce a flow of cold fluid for cryogenic surgery by freezing tissue for minimal bleeding. A simple schematic for such a system is shown in Fig. 1.3. The same system can also function as an air conditioner with the dual purpose of cooling a building in summer and heating it in winter; in this last mode of use, it is also called a heat pump. For mobile applications, we can make simple models for gasoline and diesel engines typically used for ground transportation and gas turbines in jet engines used in aircraft, where low weight and volume are of prime concern. These are just a few examples of familiar systems that the theory of thermodynamics allows us to analyze. Once we learn and understand the theory, we will be able to extend the analysis to other cases we may not be familiar with.

Beyond the description of basic processes and systems, thermodynamics is extended to cover special situations like moist atmospheric air, which is a mixture of gases, and the combustion of fuels for use in the burning of coal, oil, or natural gas, which is a chemical and energy conversion process used in nearly all power-generating devices. Many other extensions are known; these can be studied in specialty texts. Since all the processes engineers deal with have an impact on the environment, we must be acutely aware of the ways in which we can optimize the use of our natural resources and produce the minimal amount of negative consequences for our environment. For this reason, the treatment of efficiencies for processes and devices is important in a modern analysis and is required knowledgeforacompleteengineeringconsiderationofsystemperformanceandoperation. Before considering the application of the theory, we will cover a few basic concepts and definitions for our analysis and review some material from physics and chemistry that we will need.

Visit our Next post: A THERMODYNAMIC SYSTEM AND THE CONTROL VOLUME

Production Planning and Control process

Production Planning and Control process

প্রডাকশন প্লানিং এন্ড কন্ট্রোল বিষয়ের প্রশ্নোত্তর

প্রশ্নঃ উৎপাদন বলতে কি বুঝ (what is production means)?

উৎপাদন হচ্ছে একটি প্রক্রিয়া যাহার সাহায্যে প্রকৃতি লব্দ কাঁচা মাল কে মেশিন টুলস(Machine tools)ও শ্রমের দ্বারা মানুষের চাহিদা অনুযায়ি উপযোদ সৃষ্টি করে সেবা প্রদান করা হয় । অর্থাৎ উৎপাদন হচ্ছে এমন একটি প্রক্রিয়া যার সাহাযে পণ্য প্রস্তুত করে মানুষের সেবা প্রদান করা হয় ।

যেমন উৎপাদনের ৪টি উপকরন রয়েছে তা হলো :

Production planning and control

প্রশ্নঃ  উৎপাদনের প্রকারভেদ (Types of prodction )দেখাও ।

উৎপাদন মূলত ২ ভাগে ভাগ করা যায় ।

ক) অবিরাম উৎপাদন (Endless production)

খ) সবিরাম উৎপাদন (Intermittent production)

অবিরাম উৎপাদন কে আবার দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে ।

১.  ম্যাস উৎপাদন    (Mass production)    ২ .  প্রসেস উৎপাদন (Process production)

সবিরাম উৎপাদনকে আবার ‍ৃ২ ভাগে ভাগ করা যায় ।

১.   জব উৎপাদন (Job production)   ২.  ব্যাচ উৎপাদন (Batch production)

 

প্রশ্নঃ  বিভিন্ন প্রকার প্রডাকশন সিস্টেমের (Different types of production systems)নাম লিখ ।

ব্যাচ উৎপাদন মাস উৎপাদন
১  .  বাজারের চাহিদা অনুযায়ি একই সঙ্গে অসংখ্য দ্রব্য উৎপাদন করা হয় । একটি নির্দিষ্ট পরিমান উৎপাদনের পর আবার অন্য একটি ঈস্থাক্টি উৎপাদন হয় ।

২  . ইহা সবিরাম উৎপাদন প্রক্রিয়া ।

৩  . এক ব্যচ উৎপাদন শেষ হলে অন্য প্রডাক্ট উৎপাদনের জন্য নতুন সরাঞ্জামের সাহায্য নিতে হয় ।

৪  . রসায়ন শিল্পে ঔষধ এরুপ পদ্ধতিতে উৎপাদন করা হয় ।

১  . একই জিনিষ অনবরত বিপুল পরিমানে উৎপাদন হয়।

২  . ইহা অবিরাম উৎপাদন প্রক্রিয়া ।

৩  . এ উৎপাদনে একই ধরনের যন্ত্রপাতি ও সরাঞ্জাম দীর্ঘ ‍দিন যাবৎ ব্যবহার করা হয়  ।

৪  . অটো মোবাইল ,বয়ন শিল্প প্রভৃতিতে এই পদ্ধতিতে উৎপাদন করা হয় ।

 

 

জব উৎপাদনঃ যে উৎপাদন পদ্ধতিকে ক্রেতার ‍নির্দেশরনর উপর ভিত্তি করিয়া দ্রব্য উৎপাদন করা হয় তাকে জব উৎপাদন বলে । ইহা সবিরাম উৎপাদন পদ্ধতি । এই পদ্ধতিতে ক্রেতা তার মালের পূর্ন বিবরন প্রদান করিলে  সেই অনুযায়ি পণ্য উৎপাদন করা হয়।

যেমন : বড় টার্বো জেনারেটর ,বয়লার , জাহাজ , রেলের কাঁচ, ঢালাই কারখানা উৎপাদন বস্তু এই পদ্ধতির অন্তর্ভূক্ত ।

 

প্রশ্নঃ সংস্থা বা অর্গানাইজেশন বলতে কি বুঝ (What is the organization?)? একটি ভাল সংস্থার গুণাবলি লিখ ।

 

সংস্থা : সংস্থা হলো এমন একটি সংগঠন যাহা কোন নির্দিষ্ট উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য কিছু সংখ্যক জনসমষ্ঠির সমন্বেয়ে গঠিত ।

ভাল সংস্থার গুনাবলিঃ

  1. একটি মাত্র উৎস হতে নিয়ন্ত্রিত হতে হবে ।
  2. অধীনস্থদের সমালোচনা ব্যক্তিগত ভাবে করতে হবে ।
  3. বিভিন্ন নির্বাহির মধ্যে সমঝোতা থাকতে হবে ।
  4. প্রতিটি বিভাগ ও কর্মির কার্জ ক্ষমতা ও দায়দায়িত্ব সমন্ধে সুস্পষ্ট বর্ননা থাকতে হবে ।
  5. ইহার নিয়ন্ত্রণ সহজ হবে ।
  6. ইহার নিয়ন্ত্রণ সহজ হবে ।
  7. প্রতি বিভাগের কার্যের সমন্বয় সাধনের জন্য শক্ত কাঠামো থাকতে হবে ।

 

প্রশ্নঃ শিল্প কারখানার স্থানিয়করন বলতে কি (What is the localization of the industrial factory) বুঝ ?

 

শিল্পে কারখানার স্থানিয়করনঃ শিল্প কারখানা স্থাপন করিবার পূর্বে উহার সঠিক অবস্থান কোথায় হইবে তাহা নির্ণয় করে উহা স্থাপন করা কে শিল্পের স্থানিয় করন বলে। কারখানার সাফাল্য বহুলাংশে উহার সুযোগ ও সুবিধা জনক অবস্থান বা স্থানিয়করনের উপর নির্ভর করে ।

যেমন; চিনির কল,চা প্রক্রিয়াজাত কারখানা উৎপাদিত ভুমির কাছে হয়ে থাকে ।

 

একটি কারখানা স্থান ঠিক করবার সময় যে সকল বিষয় বিবেচনা করিতে হইবে তাহার অন্তত ৫ টি বিবরন হলো :

 

  1. জমির মূল্য : কারখানা গৃহ , আবাসস্থল , প্রভিতি স্থাপনে প্রচুর জমির প্রয়োজন কাজেই স্থান নির্বাচন কালে জমির মূল্যে অবশ্যই বিবেচ্য ।
  2. মালামাল পরিবহন : মালামাল আনা নেওয়ার জন্য সুবিধাজনক স্থানে কারখানা স্থাপন করতে হবে ।
  3. শ্রমিক: ঐ স্থানের শ্রমিকের মান এবং পরিমান বিবেচনা করতে হয় ।
  4. শ্রমিকের বৈশিষ্ঠ : কারখানা স্থাপনের জমির সমতলতা ,উচ্চতা , মাটির অবস্থা , বিদ্যূৎ ও গ্যাস সুবিধা ইত্যাদি ‍বিবেচনা করতে হয় ।
  5. কাচাঁমালের নৈকট্য : কাঁচামালের প্রাথমিক উৎসের নিকট কারখানা স্থাপনে সুবিধা পাওয়া যায় ।

 

 Industrial planning

 

প্রশ্নঃ যে সকল শর্তাবলি একটি প্লান্টের অবস্থানকে প্রভাবিত করে তাহাদের বর্ণনা দাও।

উপরের প্রশ্নের উত্তরে জমির মূল্য , কাচাঁমালের নৈকট্য , স্থানের বৈশিষ্ঠ , শ্রমিক , পরিবহন সুবিধা , ইত্যাদি দিলেই হবে তবে আরও যেসব দেওয়া যেতে পারে সেগুলা নিচে আলোচনা করা হলো :

যে সকল শর্তএকটি প্লান্টের অবস্থান কে প্রভাবিত করে সেগুলা হলো:

  1. সরকারের শিল্পনীতি : প্লান্টের অবস্থা নির্ণয় অনেক সময় সরকারের শিল্প নীতির উপর নির্ভর করে ।
  2. প্রতিযোগি শিল্প প্রতিষ্ঠানের নৈকট্য : একই রকম কারখানা গুলি একই জায়গায় হওয়া উচিত । একই রকমের সুযোগ সুবিধা লাভের প্রেক্ষিতে সমজাতীয় কারখানা গুলি এক স্থানে কেন্দ্রিভুত হইয়া থাকে । যেমন, নারায়ণগঞ্জে পাটকল বেশি ।
  3. পরিপূরক শিল্প প্রতিষ্ঠানের নৈকট্য : এক কারখানার উৎপাদিত পণ্য অনেক সময় অন্য কারখানার কাচাঁমাল হিসেবে ব্যবহৃত হয় তাই পরিপূরক ‍ুশিল্পের নৈকট্য কারখানার স্থান নির্বাচন কে প্রভাবিত করে ।
  4. অনুকূল আবহাওয়া : অনুকূল আবহাওয়া স্থান নির্বাচনকে প্রভাবিত করে । যেমন, ময়দা তৈরির কারখানার জন্য শুষ্ক আবহাওয়া প্রয়োজন তাই ময়দার কারখানা শুষ্ক আবহাওয়া সম্পন্ন স্থানে তৈরি করা হয়
  5. বাজারের নৈকট্য : কম সময়ে এবং কম খরচে বাজারজাত করনের সুবিধার জন্য ‍শিল্প কারখানা বাজারের কাছাকাছি হয়ে থাকে । ইহা ছাড়া আরও যেসব কারনে শিল্প কারখানার স্থান নির্বাচন কে প্রভাবিত করে সেগুলো হলো : জল ও স্থল পথে যাতায়াতের সুবিধা আবাসিক সুবিধা, সমপ্রসারনের সুবিধা, পানি সরবরাহের সুবিধা, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সুবিধা ,মেরামত সুবিধা আর্ন্তজাতিক বাজার ইত্যাদি ।

 

প্রশ্নঃ প্লান্ট লে আউট বলতে কি বুঝায় (What does the plant layout mean?)? উহা কত প্রকার ও কি কি ?

প্ল্যান্ট লে- আউট : একটি কারখানা উৎপাদন কাজ কে সুন্দর সহজ ভাবে সু সম্পন্ন করার জন্য ,যন্ত্রপাতি, কাচাঁমাল এবং উৎপন্ন দ্রব্যের গুদাম ঘর ,জিনিসপত্র রাখার স্থান ,যাতায়াতের গলি পথ । উৎপাদনে সহয়াতা কারি অন্যান্য বিষয়ে যথাযথ অবস্থান নির্ধারন বা বিন্যাসকেই প্ল্যান্ট লে- আউট বা কারখানা বিন্যাস বা প্রকল্প বিন্যাস বলে।

প্রকল্প বিন্যাসকে ৫ ভাগে ভাগ করা যায় ।

  1. প্রসেস লে- আউট
  2. প্রডাক্ট লে- আউট
  3. প্রডাক্ট এবং প্রসেস লে- আউট
  4. ষ্টেশনারি লে আউট
  5. মিক্সড লে- আউট

Industrial Plan layout

প্রশ্নঃ প্ল্যান্ট লে-আউট এর উদ্দেশ্য কি (What is the purpose of the Plant Layout?)?

প্ল্যান্ট লে- আউটের উদ্দেশ্য গুলি হচ্ছে :

  1. উৎপাদনে ধারাবাহিকত ও স্বাভাবিক গতি নিশ্চিত করা ।
  2. শ্রমিকের নিরাপত্তা,সন্তুষ্টি ও দক্ষতা বৃদ্ধি করা ।
  3. কারখানার সকল স্থানের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করা
  4. কারখানার অভ্যান্তরের আলো ,বাতাস ,পানি ,বিদ্যুৎ , বিশ্রাম , প্রভৃতির সুযোগ নিশ্চিত করা ।
  5. মালামাল চালনা দ্রুত করা ।
  6. ভবিষ্যত পরিবর্তন ও সমপ্রসারন নিশ্চিত  করা ।
  7. উপাদানের মান ও পরিমান বৃদ্ধি করা ,বিক্রয় মূল্য হ্রাস করা তথা প্রতিষ্ঠানের লভ্যাংশ নিশ্চিত করা ।

 

প্রশ্নঃ ইভেন্টারি বা মজুত মাল কি (What is the stock)? কেন ইহার প্রয়োজন হয় ।

মজুত মাল : মজুত হচ্ছে শিল্প প্রতিষ্ঠানের অলস সম্পদ যাহার মু্ল্য রয়েছে এবং যাহ ব্যবহার যোগ্য । অথ্যাৎ মজুত মাল বলিতে কোন শিল্প প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন প্রক্রিয়ায় বিভিন্ন দ্রব্য সামুগ্রির পরিমান কে বোঝায় ।

 

মজুত মালের প্রয়োজনিয়তা : মাল মজুত করন যদি ও উৎপাদন ব্যবস্থাপনায় কামনা করেনা তবুও কিছু কিছু ক্ষেত্রে এর প্রয়োজন রয়েছে । নিম্নে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা হলো :

  1. বেকার সমস্যা দুর করার জন্য চাহিদা না থাকলেও উৎপাদন চালু রেখে মজুত মাল করা হয় ।
  2. কাচাঁমালের দুস্প্রাপপ্রতা জনিত অসুবিধা দুর করার জন্য প্রতিষ্ঠানের মজুত সৃষ্টি করা হয় ।
  3. বাজারের বর্ধিত চাহিদার সুফল লাভের জন্য পণ্য উৎপাদন বৃদ্ধি করে মজুত করা হয় ।
  4. অধিক মুনাফার জন্য মৌসুমি অনুযায়ী কাচাঁমাল ক্রয় করিয়া মজুত সৃষ্টি করা হয় ।
  5. বাজারের দ্রব্য মূল্য হঠাৎ বৃদ্ধি পাইতে পারে এই অনুমান করিয়া পূর্বেই মাল মজুত করা হয় ।

 

প্রশ্নঃ ইভেন্টারি কন্ট্রোল বা মজত মাল নিয়ন্ত্রণ কি (What is the control of stock freight)? ইহার উদ্দেশ্য কি ।

মজুত মাল নিয়ন্ত্রণ : উৎপাদনের জন্য কাচাঁমাল যাতে অতিরিক্ত না ক্রয় করা হয় এবং উৎপাদিত দ্রব্য যাতে বিক্রয় অপেক্ষায় দীর্ঘদিন গুদাম জাত না করিতে হয় তাহার জন্য প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহণ করাই মজুত মাল নিয়ন্ত্রণ ।

মজুত মাল নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্য সমুহ :

  1. গ্রাহকের চাহিদা অনুযায়ি দ্রব্য সরবরাহ করিয়া তাহাদের সন্তুষ্টি বিধান করা ।
  2. সুচিন্তিত ও ফলদায়ক মাল ক্রয়ের মাধ্যমে প্রতি ইউনিটের উৎপাদন খরচ সর্বনিম্ন রাখার ব্যবস্থা করা ।
  3. অতিরিক্ত মজুত মাল সরবরাহ জনিত লোকসান পিরিহার করা ।
  4. সল্প মজুত মাল সরবরাহ জনিত লোকসান পিরিহার করা
  5. গুদামে সংরক্ষিত পণ্যের যথাযথ তালিকা প্রস্তুত ও হিসাব সংরক্ষন করা ।
  6. বস্তু নিষ্ঠ বিক্রয় বাজেট তৈরি করা ।

 

প্রশ্নঃ মেশিন শপের জন্য কি ধরনের লে আউট করা হয় (What type of Layout are made for the machine shop)।

মেশিন শপের জন্য ২ ধরনের লে- আউট করা হয় ।

  1. প্রসেস টাইপ লে- আউট ।
  2. প্রডাক্ট টাইপ লে- আউট ।

 

প্রশ্নঃ বিন ট্যাগ বা বিন কার্ড কি (What is bin card)?

বিন কার্ড : গুদমে মাল রাখিবার পাত্রে বা স্থানে মালের তালিক সহ একটি কার্ড লাগানো থাকে । ইহাই বিন কার্ড । বিন কার্ডে ষ্টোর কিপার তারিখ সহ মালের প্রপ্তির পরিমান ও উদ্বিত্তের পরিমান লিপিবদ্ধ করিয়া রাখে ।

 

প্রশ্নঃ প্রসেস চার্ট (Process Chart)কী ? প্রসেস চার্টের প্রতিক গুলা দেখাও । 

প্রসেস চার্ট : কোন অপারেশন চক্রের বিভিন্ন পর্যায় ও তথ্যাবলির লেখচিত্রের প্রতিবেদন কে প্রসেস চার্ট বলে । ইহা কোন কার্যের পদ্ধতি বর্ণনা করিবার সর্বোৎকৃষ্ঠ কৌশল ।

What is Electrode, Flux, Filler rod and Polarity

What is Electrode, Flux, Filler rod and Polarity?

ইলেকট্রোডের (Electrode) গায়ে যে আবরণ ব্যবহার করা হয় তাদের উপাদান (Element)সমহু লিখ ?

১) গ্যাস গঠন উপাদান: সেলুলুজ (Cellulose) , ক্যালসিয়াম (Calcium) , কার্বনেট (Carbonate),  ষ্ট্রার্চ (Starch)ইত্যাদি । এই জাতীয় উপাদান ওয়েল্ডিং জোনের উপর একটি গ্যাসিয় আবরন সৃস্টি করে এবং চারিদিকে বাতাস হইতে ওয়েল্ডিং জোন কে রক্ষা করি।

২)  NaO2, CaO2, Mgo , Tio2  ইহারা আর্কের বৈশিষ্ঠ উন্নয়ন করে।

৩)  অক্সিডাইজিং উপাদান (Oxidizing material): যেমন, ফেরোম্যাংগানিজ ,ফেরোসিলিকন ,গ্রাফাইট (Graphite) , এ্যালুমিনিয়াম (Aluminum) , এবং কাঁঠের গুঁড়া (Wood Powder)। ইহারা গলিত ধাতুকে (Molten metal)পরিশোধন করে ।

৪)  বাইন্ডিং উপাদান (Binding element): যেমন : তরলকৃত কাঁচ (Liquid Glass), ডেস্ট্রিন (Destin), সোডিয়াম সিলিকেট (Sodium silicate), এসবেস্টস (Asbestos)ইত্যাদি ।

প্রশ্নঃ ইলেকট্রোডের গায়ের আবরনের কাজ কি ? অথবা, ইলেকট্রোডের গায়ে কেন আবরন ব্যবহার করা হয় ?

উত্তরঃধাতুর গায়ের আবরনের কাজ নিম্নে দেওয়া হলো :

  1. ওয়েল্ডিং করার সময় আবরণ সৃষ্টি করে বাতাসের অক্সিজেন হতে জোড় স্থান কে রক্ষা করা ।
  2. ওয়েল্ডিং জোড়াকে ধীরে ধীরে ঠান্ডা করে ।
  3. বাতাসের নাইট্রোজেন হইতে জোড়া স্থান কে রক্ষা করে ।
  4. উত্তপ্ত ধাতব কনার বিচ্ছুরন কম করা ।
  5. ইলেকট্রোডের কোর ওয়্যার কোন সংকর উপাদান কম থাকলে তা সরবরাহ করা ।
  6. সৃষ্ট আর্ক কে স্থিতিীশিল করে এবং আর্ককে সংরক্ষণ করে ।
  7. সঠিক ভাবে তাপ সঞ্চালনে সহয়াতা করে । ওয়েল্ডিং জোড়া কে শক্ত এবং শক্তিশালি করা ।

 আর্ক ওয়েল্ডিং এ গলিত ধাতুকে দূষণ হইতে রক্ষা করার জন্য ব্যবহৃত পদ্ধতি সমুহু হলোঃ

সাধারণত : ৩ পদ্ধতিতে আর্ক ওয়েল্ডিং এ গলিত ধাতুকে দূষণ হইতে রক্ষা করা যায় । যথাঃ

  1. ইলেকট্রোডের গায়ে কোটিং ব্যবহার করে : কতক গুলি জৈব পদার্থ যেমন : সেলুলোজ ,ক্যালসিয়াম , কার্বনেট , স্টার্চ ইত্যাদি ইলেকট্রোডের গায়ে কোটিং হিসেবে ব্যবহার করা হয় । ইহারা ওয়েল্ডিং এর সময় ওয়েল্ডিং জোনের উপর গ্যাসিয় আবরণ সৃষ্টি করে ফলে গলিত ধাতু বাতাসের অক্সিজেন হইতে রক্ষা পায়। ইহা ছাড়াও কোটিং হিসেবে ব্যবহৃত অক্সিডাইজিং উপাদান ফেরোম্যাংগাজিন ,ফেরোসিলিকন গ্রাফাইট , এলুমিনিয়াম , কাঠের গুড়া ইত্যাদি গলিত ধাতু পরিশোধনে ব্যবহৃত হয় ।
  2. ফ্লাক্স ব্যবহার করে : ফ্লাক্স গলিত ধাতু হইতে অক্সাইডকে ধাতু মল হিসেবে অপসরনের কাজে ব্যবহার করা হয় । ইহা ছাড়াও নাইট্রোজেন এবং অন্যান্য অপদ্রব্য অপসারণ করে ফ্লাক্স গলিত ধাতু কে দূষণ হইতে রক্ষা করে । ফ্লাক্স হিসেবে রুটাইল , চুনাপাথর ইত্যাদি ব্যবহার করা হয় ।
  3. নিষ্ক্রিয় গ্যাস ব্যবহার করে : হিলিয়াম , অর্গান , নিয়ন , নাইট্রোজেন , জেনন ইত্যাদি নিষ্ক্রিয় গ্যাসের অবিরাম প্রবাহের ভিতর ওয়েল্ডিং করলে গলিত ধাতুকে দুষণ থেকে রক্ষা করা যায় ।

প্রশ্নঃ ফ্লাক্স কি ? ইহা কেন ব্যবহার করা হয় ?

ফ্লাক্স : ইহা এক ধরনের রাসায়নিক যৈাগ যাহা ওয়েল্ডিং এর সময় যোড়া স্থান হইতে অক্সাইডকে অপসারনের কাজে ব্যবহার করা হয় । ইহা অন্যান্য ক্ষতিকারক রাসায়নিক বিক্রিয়া হইতে ওয়েল্ডকে রক্ষা করে । যেমন,,,, চুনাপাথর , মাইকা , ফ্লোরস্পার ইত্যাদি ফ্লাক্স হিসেবে ব্যবহৃত হয় ।

ফ্লাক্স ব্যবহারের কারন গুলা নিম্নে দেওয়া হলো :

  1. ইহা জোড়া স্থান হইতে অক্সাইডকে অপসারন করে ফলে অক্সিডেশন হয় না ।
  2. অন্যান্য অপদ্রব্য অপসারন করে ।
  3. শক্ত এবং নমনিয় ওয়েল্ড তৈরির জন্য
  4. গলিত ফিলার মেটালকে সঠিক স্থানে পৈাছায়ে দেয় ।
  5. গলিত ফিলার মেটালের সঠিক স্থানে পৈাছায়ে দেয় ।
  6. গলিত ফিলার মেটালের সারফেস টেনশন কমাইয়া দিয়ে ইহার প্রবাহ নিশ্চিত করে । ু
  7. ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়া কে সহজতর করে ।

প্রশ্নঃ ফিলার রড কি ?

ফিলার রড : ওয়েল্ডিং করার সময় জোড় স্থানে ফাকা জায়গায় ধাতু সরবরাহ করার জন্য যে ধাতব রড ব্যবহার করা হয় তাকে ফিলার রড বলা হয় । বেস মেটাল এবং ফিলার রড গলে গিয়ে মিশ্রিত হয়ে জোড়ার কাজ সম্পন্ন করে। বেস মেটাল এবং ফিলার রড একই ধাতব পদার্থের হয়ে থাকে ।

 প্রশ্নঃ পোলারিটি কী? উহা কত প্রকার ও কি কি ।

পোলারিটিঃ ডিসি কারেন্টের ক্ষেত্রে ইলেকট্রোন প্রবাহের দিককে পোলারিটি বলে ।

পোলারিটি ২ প্রকারঃ

  1. স্ট্রেইট পোলারিটি ।
  2. রিভার্স পোলারিটি ।

স্ট্রেইট পোলারিটি : ডিসি সরবরাহ দ্বারা ওয়েল্ডিং করিবার সময় যখন ওয়ার্ক পিচকে জেনারেটরের পজিটিভ সাইট এবং ইলেকট্রোড কে নেগেটিভ সাইটডে সংযোগ করা হয় তখন তাকে স্ট্রেইট পোলারিটি বলে ।

Write the components of the cover used on the electrode:

  1. Gas structure components: Cellulose, calcium, carbonate, starch etc. This material produces a gaseous coating on the welding zone and protects the welding zone from the air around it.
  2. NaO2, CaO2, MgO , Tio2 They improve the properties of the arch.
  3. Oxidizing material: For example, Ferro Manganese, Ferro Silicon, Graphite, Aluminum, and wood pulp. They refine molten metal.
  4. Binding element: Such as: Liquefied vitamins, darts, sodium silicate asbestos etc.

Question: What is the function of electrodes? Why is the use of electrodes on the coating?

Answer: The work of coating of metal is given below:

  1. Protecting the welded place from the oxygen of the air by creating a cover during welding.
  2. The welding pair gradually cools.
  3. Protects the space from the nitrogen in the air.
  4. Reduce heated metal particle dispersion.
  5. Provide the electrode core wire if there is no hybrid material.
  6. Dissociates the arc and destroys the ark.
  7. Properly conducive to heat conduction. Make the welding pair strong and strong.

The methods used to protect the molten metal from contamination in the arc welding are:

Usually, in three ways the welding of the molten metal can be protected from pollution. Such as:

  1. Using coating on electrode: Some of the biological substances such as cellulose, calcium, carbonate, starch etc. are used as coatings on electrodes. During the welding period, they produced gaseous coatings on the welding zone, so that the molten metal prevents the air from oxygen. In addition to this, the oxidizing material used as a coating is used in fermenting, ferrosilicon graphite, aluminum, wood crushing, etc. for the production of molten metal.
  2. Using flax: Flax is used for the removal of oxide from molten metal as metal stool. In addition to this, removing nitrogen and other unsightly flax protects the molten metal from the pollution. Rattail, limestone etc. are used as flux.
  3. Using inactive gas: When welding inside the immersive stream of inactive gas such as helium, organ, neon, nitrogen, xenon etc., molten metal can be protected from pollution.

Question: What is flux? Why is it used?

Flux: This is a kind of chemical use which is used for the removal of oxide from the location of the welding period. It protects welds from other harmful chemical reactions. For example, limestone, nike, Flore-sphere etc. are used as flax.

The causes of the flux are given below:

  1. It does not cause oxidation due to removal of oxide from pairs.
  2. Removes other bad stuffs.
  3. For making tough and flexible welding.
  4. Molten Fillers gives the metal to the right place.
  5. Molten Fillers reduce its metal surface tension and ensures its flow.
  6. The welding process makes it easy.

What is the filler rod?

Filler rod: The base metal and the filler rod metal the mixture and complete the work. The base metal and the filler rod melt the mixture and complete the work. l rod used to supply metal to the wicker place at welding place is called filler rod. Base metal and filler rod are of the same metal material.

What is polarity? What type and how much of it?

Polarity: In the case of DC current, the electron flow is called polarity.

Two types of Polarity:

  1. Straight Polarity.
  2. Reverse Polarity.

 

What is Welding & Classification of welding methods

What is Welding & Classification of welding methods

Welding & Classification of welding methods

প্রিয় শিক্ষার্থী, এই পর্বে Welding Subject এর উপর আমি আলোচনা করব। এর আগের পর্বে Automobile এর Internal combustion Engine এর Main Parts সম্পর্কে আলোচনা করেছি। আশা করি কিছুটা হলেও উপকৃত হয়েছেন। যারা এখন এ সম্পর্কে পড়েননি, তারা আমার এ লিংক থেকে পড়তে পারবেন। আজ ওয়েল্ডিং এর যেসব বিষয় নিয়ে আলোচনা করব তা হলোঃ ওয়েল্ডিং কী? ওয়েল্ডিং এর সুবিধা অসুবিধা, Main classification of welding, ফিউশন ওয়েল্ডিং, নন ফিউশন ওয়েল্ডিং, আর্ক ওয়েল্ডিং ও আর্ক কী ইত্যাদি। এছাড়া ওয়েল্ডিং প্রতিটি অংশ ধারাবাহিকভাবে পোস্ট করা হবে সুন্দর করে। যাতে সহজে বুঝতে পারেন। আর এ পোস্ট গুলো সহজ করে করি যাতে জব পরীক্ষার জন্য তাড়াতাড়ি প্রতিটি বিষয়ে জানতে পারেন।
আশা করি যেকোন বিষয়ে প্রশ্ন রাখবেন, আমি উত্তর দেব ইনশাল্লাহ্।

প্রশ্নঃ Welding বলতে কি বুঝ ? Welding সুবিধা অসুবিধা গুলি লিখ।

উত্তরঃ একই Metal দ্বারা তৈরি দুটি অংশ(parts) বা বস্তু(Mass) কে গলিত বা অর্ধগলিত অবস্থায় চাপ প্রয়োগে অথবা চাপ প্রয়োগ ছাড়া স্থায়িভাবে জোড়া(bonded) দেবার পদ্ধতিকে Welding বলে ।
ওয়েল্ডিং পদ্ধতির সুবিধাঃ
1) জটিল (Compound) গঠনের যন্ত্রাংশ মেরামতের (Repair )কাজ বা জোড়া(bonded) দেওয়ার কাজ যা অন্য পদ্ধতিতে সম্ভব না তা Welding পদ্ধতিতে করা যায় ।
2) ইহাতে যে সরাঞ্জাম(instruments) ব্যবহার করা হয় সেগুলো সহজে স্থানান্তর(Transfer) যোগ্য এবং তেমন ব্যয়বহুল(Expensive) না ।
3) ওয়েল্ডিং জোড়া(Welding pairs) মূল ধাতুর(Main Metal) কিংবা মুল ধাতুর চাইতে শক্ত(Hard) হতে পারে তাই এই পদ্ধতিতে জোড়ার দক্ষতা(efficiency) বেশি ।

ওয়েল্ডিং পদ্ধতির(Welding methods) অসুবিধাঃ
1) ওয়েল্ডিং পদ্ধতিতে ক্ষতিকারক(Harmful) আলোক রশ্মির(Light rays) বিকিরণ(Radiation) ঘটে যা অপারেটর(Operator) এবং অন্যান্যদের ক্ষতির কারন হয়ে দাড়ায় ।
2) ওয়েল্ডিং জোড়া অমসৃণ(Uneven) হয়ে থাকে ।
3) জোড়ার ভিতর অভ্যান্তরিণ(Internal) স্ট্রেস(Stress) সৃষ্টি হয় ।
4) দক্ষ শ্রমিকের(Efficient workers) প্রয়োজন হয় ।

প্রশ্নঃ ওয়েল্ডিং পদ্ধতির(Welding methods) শ্রেণীবিভাগ(Classification) দেখাও ।

উত্তরঃ ওয়েল্ডিং পদ্ধতি প্রধানত ২ প্রকারঃ
1. ফিউশন পদ্ধতি(Fusion method)
2. নন ফিউশন ওয়েল্ডিং(Non Fusion Welding)
ফিউশিন ওয়েল্ডিং আবার ২ ভাগে ভাগ করা যায়।
১. গ্যস ওয়েল্ডিং(Gas welding)
২. আর্ক ওয়েল্ডিং(Arc welding)

প্রশ্নঃ ওয়েল্ডিং এর প্রধান দুইটি ভাগ কি কি (Main classification of welding)? এবং তাদের সঙ্গা দাও ।

1) ফিউশন ওয়েল্ডিং(Fusion welding)
2) নন ফিউশন ওয়েল্ডিং(Non fusion welding)

ফিউশন ওয়েল্ডিং(Fusion welding ঃ যখন দুইটি ধাতব খন্ডকে গলন তাপমাত্রায়(Melting temperature) উত্তপ্ত করে গলিত অবস্থায়(In molten condition) কোন প্রকার চাপ প্রয়োগ ছাড়া(Without pressure applied) জোড়া দেওয়া হয় তাকে ফিউশন ওয়েল্ডিং বলে । এই পদ্ধতিতে ফিলার মেটাল(Filler Metal) ব্যবহার করা হয় । যেমন- গ্যাস ওয়েল্ডিং ,আর্ক ওয়েল্ডিং ইত্যাদি ।
নন- ফিউশন ওয়েল্ডিং(Fusion welding) ঃ যখন দুইটি ধাতব খন্ডকে গলন তাপমাত্রার নিচে(Melting temperature below) একটি নির্দিষ্ট তাপমাত্রা(temperature) পর্যন্ত উত্তপ্ত করে অর্ধগলিত অবস্থায়(In half molten condition) চাপ প্রয়োগে জোড়া দেওয়া হয় তাকে নন- ফিউশন ওয়েল্ডিং বলে। যেমন- ফোর্স ওয়েল্ডিং , রেজিস্টেন্স ওয়েল্ডিং ইত্যাদি
প্রশ্নঃ ওয়েল্ডিং জোড়া কি ? কি উহা কত প্রকার ।

উত্তরঃ ওয়েল্ডিং জোড়া(Welding pairs) পদ্ধতিতে যেসব জোড়া দেওয়া হয় তাকে ওয়েল্ডিং জোড়া বলে। ওয়েল্ডিং জোড়া সাধারনত ৫ প্রকারঃ

                        Flag welding joint

 

a) But joint b) lap joint c) t- joint d) corner joint E) edge joint

প্রশ্নঃ আর্ক(Arc) কাহাকে বলে ? ইহা কি ভাবে সৃষ্টি হয় ? উহার সর্বাধিক তাপমাত্রা কত ?
উত্তরঃ আর্কঃ চলবিদ্যুৎ(Dynamite) সম্পন্ন ধাতব বাষ্পের(Metallic steam) জ্বলন্ত প্রবাহ(Burning flows) কে আর্ক বলে । বিদ্যুৎ বর্তনির(Electric circuit) দুটি পরিবাহির(Conductivity) মধ্যে যদি স্বল্প পরিমানে ফাঁকা জায়গায়(In empty space) থাকে এবং ঐ ফাকা জায়গায় দিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহের(Electricity flow) মতো যথেষ্ট বৈদ্যুতিক চাপ বা ভোল্টেজ থাকে। তবে সেখানে এই আর্কের সৃষ্টি হয় । ( বৈদ্যুতিক আর্কের সর্বাধিক তাপমাত্রা -১১০০০ডিগ্রি ফাঃ(৬০৯৩.৩ ডিগ্রি সে)

প্রশ্নঃ আর্ক ওয়েল্ডিং(Arc welding) কি ? ইলেকট্রিক আর্ক ওয়েল্ডিং(Electric Arc Welding) এর মুল তত্ব কি ?

আর্ক ওয়েল্ডিংঃ ওয়েল্ডিং করিবার যে পদ্ধতি ইলেকট্রিাড(Electrodes) এবং কার্য বস্তুর(Work piece) মধ্যে আর্ক সৃষ্টি করিয়া উৎপন্ন তাপের সাহায্যে ধাতুকে পূর্ণ গলিত অবস্থায় আনিয়া জোড়া দেওয়া হয় তাকে আর্ক ওয়েল্ডিং বলে ।
আর্ক ওয়েল্ডিং এর মূলনীতি(The principles of the arc welding): একটি বর্তনীর দুইটি পরিবাহী প্রান্তের মধ্যে যদি সামান্য ফাঁকা স্থান রাখা হয় যাতে এক প্রান্ত হতে অপর প্রান্তে বিদ্যুৎপ্রাবাহের মতো যথেষ্ট বৈদ্যুতিক চাপ(Electrical pressure) থাকে তবে ঐ ফাকা স্থানে আর্কের সৃষ্টি হয় । আর্কের ফলে সেখানে প্রচন্ড তাপের সৃষ্টি হয় । আর্ক ওয়েল্ডিং পদ্ধতিতে এই তাপের সাহায্যে ধাতু গলাইয়া জোড়া দেওয়া হয় । ইহাই আর্ক ওয়েল্ডিং এর মূল তত্ব বা মূলনীতি ।

প্রশ্নঃ আর্ক ওয়েল্ডিং এ ব্যবহ্রত যন্ত্রপাতির নাম লিখ ।

১) ইলেকট্রোড(Electrode)

২) ইলেকট্রোড হোল্ডার(Electrode holder)

৩) বৈদ্যুতিক উৎস(Electric source)

৪) হ্যান্ড শীল্ড(Hand Shield) ও ও হেল্ড শীড(Hold Shield)

৫) হ্যান্ড গ্লোভস(Hand gloves) , ইত্যাদি ।

প্রশ্নঃ ইলেকট্রোড(Electrode) কি ? ইহা কত প্রকার ও কি কি ?
ইলেকট্রোড : ইলেকট্রোড হচ্ছে এক প্রকারের শলাকা বা দন্ড যাহা আর্ক ওয়েল্ডিং এর সময় হোল্ডার হইতে কার্য বস্তু পর্যন্ত চার্জ(Charge) বহন করে এবং আর্ক সৃষ্টি করে । ইলেকট্রোড অনেক সময় নিজে গলিয়া জো[ড়া স্থানে ধাতু সরবরাহ করে । ইহার ব্যাস সাধারনত ১/১৬হইতে …………………………………
ইলেকট্রোড(Classification of electrodes) কে প্রধানত ৪ ভাগে ভাগ করা যায়।
1) আবরন বিহিন ইলেকট্রোড(without cover electrode)
2) কার্বন বা গ্রাফাইট ইলেকট্রোড(Carbon/Graphite electrodes)
3) আবারন যুক্ত ইলেকট্রোড(Cover with electrodes)
4) টাংস্টেন ইলেকট্রোড(Tungsten Electrodes)

প্রশ্নঃ ইলেকট্রোডের গায়ে যে আবরণ ব্যবহার করা হয় তাদের উপাদান সমহু লিখ ।

১) গ্যাস গঠন উপাদান : সেলুলুজ(Cellulose) , ক্যালসিয়াম(Calcium) , কার্বনেট(Carbonate) ,ষ্ট্রার্চ(Starch) ইত্যাদি ।
এই জাতীয় উপাদান ওয়েল্ডিং জোনের উপর একটি গ্যাসিয় আবরন সৃস্টি করে এবং চারিদিকে বাতাস হইতে ওয়েল্ডিং জোন(Welding Zone) কে রক্ষা করি ।

ওয়েল্ডিং পরবর্তী পোস্ট এখানে ক্লিক করুন অথবা মেনু Welding Subject থেকে খুঁজে নিন