Samsung Galaxy M20 Price and full Specifications

Samsung Galaxy M20 Price and full Specifications

Samsung Galaxy M20

Samsung Galaxy M20 সিরিজ নতুন জোয়ার এনেছে এশিয়ার এই বাজারে। Samsung গ্যালাক্সি, একটা সময় ছিল স্যামসাংয়ের ভালো স্পিকারের ফোন নিতে গেলে 30 থেকে 40 হাজার টাকা লাগতো। যার কারনে China Market এর কাছে স্যামসাং এর মার্কেট অনেকটাই হারিয়েছে। তাই মার্কেট টাকে শক্ত হাতে ধরে রাখতে তারাও মার্কেটে নেমেছে খুবই ভালো ভাবে। এজন্য তারা বাজারে এনেছে m সিরিজের দুটি ফোন m20 এবং m10. আজকে আমি কথা বলব Samsung Galaxy M20 এর ফিচারগুলো নিয়ে এর আগের ভিডিওটিতে আপনারা Samsung Galaxy M10 এর রিভিউ দেখেছেন। প্রথমে বলবো ফোনটির নেটওয়ার্কের কথা এই ফোনটি 2G, 3G, 4G (LTE) সাপোর্ট করে। আপনি যদি ফোনটি দীর্ঘক্ষন ব্যবহার করতে চান। সে ক্ষেত্রে এটি অনায়াসে মিনিমাম 2 দিন Charging Backup দেবে আর এটিতে ব্যাটারি রয়েছে Lithium-polymer 5000 mAh ব্যাটারি। এ ব্যাটারিকে কে আপনি রিমুভ করতে পারবেন না।

Samsung Galaxy M20 Full Specifications

Name
Samsung Galaxy M20
Model
Galaxy M20
Price
14,990.00 Taka (approx)
Showroom
Click Here

Network Type

Network Configuration
2G, 3G, 4G (LTE) Supported
Speed
HSPA 5.76 fom 42.2
GPRS
Ok
EDGE
Ok

Lanuch

Lanuch publicity
January 2019
Release Date
2019, February
GPRS
Ok
EDGE
Ok

Body Specifications

Body Dimensions
156.4 x 74.5 x 8.8 millimeter
Weight
186 gram
Sim Network
Dual SIM (Nano-SIM and dual stand-by)

Display Specifications

Display
PLS TFT Touchscreen with Sixteen color
Display Size
6.3 inches
Resolution
Full HD+ 1080 x 2340 pixels
Multitouch
Ok
Density
409 ppi

Phone Operating System

Operating System
Android Oreo v8.1
Operating System
Oreo v8.1
CPU
Octa-core
GPU
Mali-G71 MP2
Chipset
14 nm Exynos 7904 Octa

Other Specifications

Fornt Camera
Eight Megapixel, in-display flash, HDR, F/2.0 aperture and 1080p full HD+ video record
Back Camera
Dual Camera, 13 MP and 5 MP
Camera Features
Panorama, HDR and LED Flash
Processor
4x1.8 & 4x1.8 GHz Octa-core Processor
RAM
3/4 GB
ROM
32/64 GB
Wireless LAN
Ok, hotspot, Wi-Fi direct
USB
2.0 MicroUSB, OTG Support
Other Features
Good Face Unlock, FM Radio & Bluetooth, Recording and Loudspeakert

এখন কথা বলব ফোনটির ডিসপ্লে সম্পর্কে, এই ফোনটির 6.3 inches, Full HD+ 1080 x 2340 pixels. যদি আপনি ভালো ক্যামেরার ফোন খুঁজে থাকেন, তাহলে সত্যি বলব স্যামসাং m20. সত্যিই অসাধারণ কারণ ফোনটির ব্যাক ক্যামেরা তে রয়েছে দুইটি ক্যামেরা একটি হল 13 মেগাপিক্সেল অপরটি হলো ফাইভ মেগাপিক্সেল। আর এতে রয়েছে পিডিএফ এলইডি ফ্ল্যাশ এবং সাথে রয়েছে depth sensor.
এই ফোনটির সম্মুখের ক্যামেরা আরো অসাধারণ। আপনি সামনের ক্যামেরা দিয়ে অসাধারণ সেলফি তুলতে পারবেন এবং 1080 পিক্সেল এর ভিডিও করতে পারবেন, এর জন্য সামনে রয়েছে 8 Megapixel এর পিকচার এইচডি ইস্কুলে প্লাস এর ক্যামেরা।

এই ফোনটির বডির ওজন খুবই কম 186 গ্রাম। এটির বডি হলো প্লাস্টিক বডি আর এর আয়তন হলো 156.4 x 74.5 x 8.8 মিলিমিটার। এই ফোনটিতে আপনি 512 জিবি পর্যন্ত dedicated slot মেমোরি ইউজ করতে পারবেন। এটিতে Android Oreo v8.1 অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে। এই ফোনটি আপনি 3 জিবি র্যামের এবং চার জিবি র্যামের পাবেন। কিন্তু, এতে দামের পার্থক্য রয়েছে। আপনি যদি 3 জিবি র্যামের ফোন কিনেন, তাহলে ইন্ডিয়ান টাকায় 10 হাজার 900 টাকা পড়বে এবং যদি 4 জিবি র্যামের এর ফোন কিনেন। তাহলে, আপনার 12 হাজার 900 টাকা পড়বে। এটি হল ইন্ডিয়ান প্রাইস, আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে 3 জিবি র্যামের ফোন কিনেন, তাহলে পড়বে 15 হাজার 900 টাকা। আপনি যদি 3 জিবি রামের ফোন কিনেন তাহলে আপনার ফোনের র্যাম হবে 32 জিবি। যদি আপনি চার জিবি র্যামের ফোন কিনেন, তাহলে রোম হবে 64 জিবি।

আপনি ফিঙ্গারপ্রিন্ট লক ব্যবহার করতে পারবেন, এর জন্য রয়েছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। তাছাড়া রয়েছে Proximity, Accelerometer, Fingerprint, Gyroscope, E-Compass Sensors.
এছাড়া আপনি ফোনটিতে OTG ব্যবহার করতে পারবেন। তাছাড়া তো ফোনটিতে রয়েছে ওয়াই ফাই হটস্পট এছাড়াও রয়েছে Face Unlock, ব্লু-টুথ, GPS, A-GPS, FM Radio & Recording ইত্যাদি।

কিভাবে earnmines কয়েন বিক্রি করা যায়

কিভাবে earnmines কয়েন বিক্রি করা যায়

What is earnmines and how do works it?

প্রতিদিন ইউটিউব, গুগলে হাজারো শিক্ষিত বেকার  সার্চ করে থাকেন, online income কিভাবে করা যায়। কিভাবে online থেকে টাকা উপার্জন করা যায়। ঠিক তেমনি online money income করার জন্য প্রতি নিয়ত সবাই  online money making website অথবা money making apps খুঁজে থাকেন। এসব সাইট, অ্যাপসে কাজ করলে তারা সামান্য পেমেন্ট দিলেও কিছু দিন পরেই হারিয়ে যায়। কিন্তু আজ আমি এমন একটি সাইট সম্পর্কে জানাবো, যেখানে online jobs without investment ছাড়াই করতে পারবেন। এমন কি নিজের কাজ অন্যেদের দিয়েও করাতে পারবেন। বলতে পারি, এক ঢেঁলে দুই পাখি মারা।

হয়তো, ইতিমধ্যেই earn mines ওয়েব সাইট সম্পর্কে জেনেছেন। যারা এখনও ইনকাম থেকে বিরত অথবা পড়াশুনার পাশাপাশি সামান্য সময় ব্যয় করে টাকা ইনকাম করতে চান। তারা আর্নমাইনস ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারেন। এখানে earn mines দুই ধরণের ব্যক্তিদের সেবা দিচ্ছেন, যারা ইনকাম করতে চান তাদের জন্য এবং যারা বিভিন্ন সোশিয়াল মিডিয়া যেমনঃ youtube, facebook, twitter, Instagram, Blog ইত্যাদি নিয়ে কাজ করে থাকেন। কিন্তু এগুলো বুস্ট করার জন্য মাস্টার কার্ড, ভিসা কার্ড না থাকার কারণে কোনো অগ্রগতি লাভ করতে পারছেনা। ঠিক তাদের কথা মাথায় রেখে earnmines নিয়ে আসল একসাথে ইনকাম আবার পেইড সার্ভিস। তা বন্ধু আপনি পিছে থাকবেন কেন? আপনি আসতে পারেন এ ইনকামের পাল্টফর্মে। আগে সাইটটি ঘুরে আসুন তারপর সিদ্ধান্ত নিন। কিভাবে ইনকাম করবেন অথবা পেইড সার্ভিস গুলো উপভোগ করবেন, তা বিস্তারিত জানানো হয়েছে এই ভিডিওটিতে। সম্পূর্ণ ভিডিওটি।

কিভাবে earnmines কয়েন Sell করবেন?

স্যার আপনি কী? earn mines থেকে কয়েন ইনকাম করেছেন? যদি সরাসরি বিক্রি করতে চান? তাহলে আমাদের কাছে বিক্রি করতে পারেন। earn mines এর পেজে Sell করতে পারেন। আমি Social Media তে কাজ করে থাকি। তাই আমার নিজস্ব প্রয়োজনে কয়েন কিনে থাকি। তাহলে আমার কাজ আরো সহজ হয়। যাহোক, EARN MINES এর নিয়মানুসারে ৮৫০০ কয়েন= ১ ডলার। আমরা ১ ডলার= ৮০ টাকা করে দিয়ে থাকি। কয়েন বিক্রির টাকা আপনি বিকাশে নিতে পারবেন অথবা Flexiload হিসেবেও নিতে পারবেন। কয়েন পাঠানোর নিয়মঃ
1. earnmines.com-এ আপনার username ও password দিয়ে লগইন করুন
2. এরপর +More মেনুতে ক্লিক করার পর ২ নং-এ Transfer Coin মেনুতে ক্লিক করুন
3. Transfer Coin to ফাঁকা বক্সে enzymerony লিখুন। এরপর আপনার বিক্রিত কয়েনের পরিমাণ বসিয়ে দিন। তারপর Send করে দিন।

কয়েন পাঠানোর আগে আমাদের সাথে 01987-662762 নাম্বারে যোগাযোগ করুন। তাহলে সঙ্গে সঙ্গে টাকা পাবেন। ও হ্যাঁ কয়েন ট্রান্সফার করার জন্য earnmines ১৫% কয়েন কেটে নিবে। তাহলে ভাবছেন আপনার লাভ কী হলো? এখানে লাভ একটাই কয়েন বিক্রি করার পর পেমেন্ট পাবার জন্য ১ মাস অপেক্ষা করতে হবে না। টাকাও কম দিচ্ছি না ১ ডলার=৮০ টাকা। টাকা বিকাশে অথবা Flexiload নিতে পারবেন।

আমাদের কাছে কয়েন বিক্রি ও টাকার পরিমাণ সমূহঃ
২১২৫ কয়েন= ২০ টাকা
৩১৮৮ কয়েন= ৩০ টাকা
৪২৫০ কয়েন=৪০ টাকা
৫৩১৩ কয়েন= ৫০ টাকা
৬৩৭৫ কয়েন= ৬০ টাকা
৭৪৩৮ কয়েন= ৭০ টাকা
৮৫০০ কয়েন= ৮০ টাকা
৯৫৬৩ কয়েন= ৯০ টাকা
১০৬২৫ কয়েন= ১০০ টাকা

আপনারা যারা কয়েন বিক্রি করতে চান সরাসরি, তাহলে উপরোক্ত নীতি অনুযায়ী বিক্রি করতে পারবেন। কয়েন বিক্রি করার আগে অব্যশই আমার সাথে যোগাযোগ করবেন। এজন্য উপরের দিকে আমার ফোন নাম্বার দিয়েছি।

আর্ন মাইনস নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু কথা

এখন হয়তো অনেকেই ভাবছেন অথবা আর্নমাইনস টিম ভাবছেন, আমি কেন কয়েন ক্রয় করছি? এখানে গোপনীয়তার কিছুই নেই। আমি ডলারও কম দিতাছিনা। এখানে যাতে আর্নমাইনস ওযেবসাইটির প্রচার এবং সবার কাজ করার বিশ্বস্ততা পায়। তাই সবার কাজ করার আগ্রহ যাতে  বৃদ্ধি পায়, এজন্য সরাসরি পেমেন্টের ব্যবস্থা করলাম। তাই সবাইকে বলব আসুন সবাই কাঁধে হাত রেখে এক সাথে সাবলম্বী হই এবং একে অপরকে সহযোগিতা করি।

একটা কথা না বললেই নয় যে, যারা পেজ লাইক , ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করে কয়েন আয় করেছেন, তারা কখনও ঐসব পেজ এবং ইউটিউবকে আন সাবস্ক্রাইব করবেন না। মনে রাখবেন, কাউকে ঠকিয়ে কখনও জয়ী হওয়া যায় না। এখানে আর্নমাইনস এর মত সবার সমান কাজ করার জায়গা, সহযোগিতার জায়গায়। মনে রাখবেন, এখানে একদিকে আয়ও হচ্ছে পাশাপাশি নিজের সোসিয়াল সাইট গুলোর অগ্রসর হচ্ছে। এবং অপরকে সহযোগিতাও হচ্ছে। তাই বলব, কখনও হীনমন্যতার পরিচয় দিবেন না। আসুন একসাথে কাজ করি।

যেসব নতুন ভিউয়ার, যারা এখনও আমার চ্যানেল কে সাবস্ক্রাইব করেননি, তারা সাবস্ক্রাইব করে সাথে থাকুন। আপনাদের মনে যদি কোন প্রশ্ন জাগে অথবা জিজ্ঞাসা থাকে, তাহলে কমেন্ট করে জানাবেন।

তামিমের হাতেই কুমিল্লার জয় পেল | বিপিএল ২০১৯

তামিমের হাতেই কুমিল্লার জয় পেল | বিপিএল ২০১৯

তামিমের ব্যাটিংএ জয় পেল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস

বিপিএল সেশন ৬-এ শিরোপা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস জিতে নিল। ডায়নামাইটসকে তারা মাত্র ১৭ রানে হারিয়েছেন। টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং এর সিদ্ধান্ত নেয় সাকিবাল হাসান, ফলে প্রথমে ব্যাটিং করে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস ১৯৯ রান তুললেও ঢাকা থেমে যায় ১৮২ রানে এবং তামিম ইকবাল করেন ১৪১ রান। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস এর পক্ষে ওয়াহাব রিয়াজ নিয়েছেন ৩ উইকেট। এছাড়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও থিসারা পেরেরা তুলে নিয়েছেন ২টি করে উইকেট।

tamim Iqbal 2019 bpl fnal

ইনিংসের ১৩তম ওভারে রনি তালুকদার ও কাইরন পোলার্ডের সঙ্গে ভুল-বোঝাবুঝিতে মনে হয় ম্যাচের মোর ঘুরিয়েছিল। হয়তো অনেকেই বাবছেন, উপুল থারাঙ্গার ফেরা? ঢাকা ডায়নামাইটসের সবচেয়ে বড় ধাক্কা হল যে সুনীল নারাইন রান আউট হওয়া। কিন্তু সেটা সফলভাবে সামলে তুলেছিলেন রনি তালুকদার এবং উপুল থারাঙ্গা। রনি তালুকদার এবং উপুল থারাঙ্গা তারা ৯ ওভারে ১০২ রানের জুটি করে ঢাকাকে নিয়ে গিয়েছিলেন জয়ের পথেই। কিন্তু, ১২-তম ওভারেই নিজেদের জয়ের পথে ম্যাচ ঘুরিয়েছিলেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস।

রনি তালুকদার এবং উপুল থারাঙ্গা আউট হওয়ার ক্ষতি সামলানোর জন্য অনেক অস্ত্র থাকলেও তারা আজ জ্বলে উঠতে পারেনি। আজ কাইরন পোলার্ড, আন্দ্রে রাসেলরা এবং রনি-থারাঙ্গারা কেউই ম্যাচ হাতে নিতে পারেনি। এর ফলে ঢাকা ডায়নামাইটস পরপর নয়টি উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৮২ রান করে কুমিল্লার কাছে ১৭ রানে হেরে যায়।

রনি তালুকদার এবং উপুল থারাঙ্গা অত্যান্ত ঝঁড় গতিতে রান তুলতেছিলেন, তখন কুমিল্লার দরকার ছিল ভালো একটি ওভার, ক্যাচ আউট কিংবা রান আউটের মত উত্তম সময়। ইনিংসের ১২-তম ওভারটি ছিল তেমনি, যে ওভারটি করেছিলেন দলের পাকিস্তানি ফাস্ট বোলার ওয়াহাব রিয়াজ। ফলে আমরা এককথায় বলতে পারি, ঢাকা ডায়নামাইটসের সর্বনাশটা শুরু হয় তখন থেকেই। এই ওভারে রান এসেছিল মাএ ১টি এবং তামিম ইকবাল প্রায় ১৫ থেকে ২০ গজ দৌড়ে দূর্দান্ত একটি অসাধারণ ক্যাচ। যে ক্যাচটি ছিল অনেক কঠিন। ওভারের বাকি বল গুলো সফলভাবে করেন ওয়াহাব রিয়াজ।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস বোল করেছিলেন অত্যান্ত দুর্দান্ত। আজ সাইফউদ্দিন এবং মেহেদী হাসানরা সবাই বেশি রান দিয়েছিলেন। তবে সাইেউদ্দিন ৪ ওভার করে ৩৮ রান দিয়েছেন এবং ২ উইকেট নিয়েছেন। এদিকে ওয়াহাব রিয়াজও রেহাই পাননি থারাঙ্গা ও রনি তালুকদারের কাছ থেকে। ওয়াহাব রিয়াজ প্রথম ওভারেই ১৫ রান দিয়ে অবশ্য ভালভাবে ফিরে ছিলেন, এক কথায় সেটি ছিল অত্যান্ত দুর্দান্ত। ওয়াহাব রিয়াজ পরের ৩টি ওভার বোলিং করে ১৩ রান দিয়েছেন এবং ৩ উইকেট পেয়েছেন। থিসারা পেরেরাও ৪ ওভার করে ৩৫ রান দিয়ে ২টি উইকেট নিয়েছেন।

আজ যদি তামিম ইকবাল ১৪১ রান করে হেরে যেতেন, তাহলে হয়তো তামিম ইকবালের আফসোসের অন্ত থাকত না, এমন কি তার ভক্তদেরও। যাহোক, শেষ পর্যন্ত ম্যাচটা জিতে নিয়েছেন তামিমরা। বিপিএলের ষষ্ঠ আসর-এ দারুণ একটি চিত্রনাট্যের উপহার এবং দেশি তারকারদের দারুণ পারফরম্যান্সে বিপিএল এর পর্দা উঠল।

বিপিএল ফাইনালে যেসব রের্কড গড়লেন তামিম ইকবাল

বিপিএল ফাইনালে যেসব রের্কড গড়লেন তামিম ইকবাল

বাংলাদেশের একমাত্র প্লেয়ার যিনি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সেঞ্চুরি তিনি হলেন তামিম ইকবাল। তাছাড়াও তামিম ইকবালে টি-টোয়েন্টিতে আরো দুইটি সেঞ্চুরি আছে তাহার। কিন্তু, বাংলাদেশ প্রিমিয়াম লীগে একটা সেঞ্চুরিও ছিল না তামিম ইকবালের।

tamim Iqbal 2019 bpl fnal

যারা বড় মাপের প্লেয়ার তারা হয়তো, তাদের সেরাটা উপকার দিতে বড় কোন মঞ্চ খুঁজেন, তেমনি বাঁহাতি এ ওপেনার তামিম ইকবাল বিপিএলে সেঞ্চুরি করতে বেছে নিলেন ফাইনালের মতো বড় মঞ্চ। খেললেন বড় একটি ইনিংস, তিনি ৬১ বলে ১৪১ রানের ঝকঝকে ইনিংস উপহার দিয়েছেন। বিপেএল এর এই ফাইনাল ইনিংসে যেসব বড় রেকর্ড গুলোর মালিক হলেন। সেগুলো হলঃ

  • টি-টোয়েন্টির কোনো ফাইনাল মঞ্চে প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে সেঞ্চুরি করলেন তিনি।
  • তামিমের বর্তমান স্ট্রাইকরেট হল ২৩১। ফাইনালে যেসব প্লেয়ারা ৫০-এর উপরে রান করেছেন এসব ব্যাটস ম্যানদের মধ্যে তিনি সেরা।
  • তামিমের ব্যক্তিগত অপরাজিত সর্বোচ্চ ১৪১ রান, তাছাড়া টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তিনিই সর্বোচ্চও। এর আগে
  • ২০১৩-২০১৪ সালে বিসিবি-মোহামেডান ম্যাচে টি টোয়েন্টিতে ১৩০ রান করেছিলেন।
  • বিপিএল ইতিহাসে এটিই হল দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ইনিংস এবং গত বিপিএলেই ১৪৬ রানের বড় ইনিংস খেলেছিলেন বিদেশী প্লেয়ার ক্রিস গেইল।
  • টি-টোয়েন্টির ইতিহাসে এক ম্যাচে দুই অঙ্কের ছক্কা তিনিই মেরেছেন। বিপিএল ফাইনাল ম্যাচে তামিম ইকবাল মোট এগারটি ছক্কা মেরেছেন।
  • তামিম ইকবাল বিপিএল এর সর্বোচ্চ রান করা মুশফিকুর রহিমের রের্কড ভেঙ্গেছেন। এর আগে মুশফিকুর রহিমের ১৭৮৩ রান ছাড়িয়ে তামিম ইকবালের ১৮২৫ রান করেন।

এবার বিপিএল এ আমাদের দেশীয় খেলোয়ারগণ অনেক ভাল খেলেন। এবার বিপিএল-এ সর্বোচ্চ উইকেট পেয়েছেন সাকিবাল হাসান। তিনি সর্বমোট ২৩ উইকেট লাভ করেন বিপিএল মোট ম্যাচসহ ফাইনালে।  আশা করি সামনে নিউজিল্যান্ডের সফরটা অনেক ভাল ভাবে সফল করে আসতে পারবেন তারা । আমরা সবাই দোয়া করি তারা যেন নিউজিল্যান্ড হোয়াইট ওয়াস করে দেশের নাম উজ্জ্বল করবে।

আমাদের পোস্ট আপনাদের কেমন লাগল তা কমেন্ট করে জানাবেন। আমাদের অন্যান্য পোস্ট সমূহ হলো

কনডম কীভাবে তৈরি করা হয় | বাংলাদেশে কনডম তৈরি কারখানা

HOW TO ACTIVATE WINDOWS 10 WITH KMSPICO_SETUP FILE 2018

সবাই ভাল থাকবেন।

বিপিএল ২০১৯ সর্বশেষ খবর | বাংলাদেশ ক্রিকেটের খবর | বিপিএল পয়েন্ট তালিকা

বিপিএল ২০১৯ সর্বশেষ খবর | বাংলাদেশ ক্রিকেটের খবর | বিপিএল পয়েন্ট তালিকা

এবার বিপিএলে শেষ চারে কোন দল খেলবে তা পুরোপুরি পরিষ্কার  না হলেও তবে , এদিকে রংপুর রাইডার্স ৩৬-তম ম্যাচে  Rajshahi Kings কে হারিয়ে দিয়ে ১৪ পয়েন্ট অর্জন করেছে শেষ চারে খেলা নিশ্চিত করেছেন, অপরদিকে Comilla Victorians ৩৫-তম ম্যাচে Chittagong Vikings কে হারিয়ে শেষ চারে ওঠেছেন। পাশাপাশি Chittagong Vikings ৩৭-তম ম্যাচে Dhaka Dynamites কে হারিয়ে ১৪ পয়েন্ট অর্জন করেছেন। কিন্তু এবার বিপিএল ২০১৯ এ Khulna Titans শেষ চারে কখনোই খেলতে পারবেন। কেননা, তারা ইতিমধ্যে ১১টি ম্যাচ খেলে মাত্র ২টিতে জয় পেয়েছেন।

অপরদিকে Rajshahi Kings সর্বমোট ১১টি ম্যাচ খেলে মাত্র ৫টিতে জিতে মোট ১০ পয়েন্ট নিয়ে  আজ ৩৮-তম ম্যাচে Sylhet Sixers সাথে লড়ছেন। Sylhet Sixers এর সাথে জয় লাভ করলে তাদের মোট ১২ পয়েন্ট হবে। কিন্তু এদিকে Sylhet Sixers মোট ১০টি ম্যাচ খেলে মাত্র চারটিতে জয় পেয়ে মাত্র ৮ পয়েন্ট অর্জন করেছেন। তাই বলা যাচ্ছে না, এখন কোন দল শেষ চারে খেলতে পারবেন।

এদিকে Sylhet Sixers আজ ৩৮-তম ম্যাচে Rajshahi Kings এর সাথে জয়লাভ করতে পারলেও তারা শেষ চারে কখনোই খেলতে পারবেননা। কারণ, তারা মোট ১০টি ম্যাচ খেলে মাত্র চারটিতে জয় পেয়ে মাত্র ৮ পয়েন্ট অর্জন করেছেন, যদি তারা আজ ৩৮-তম ম্যাচে জিততে পারেন তাহলে তাদের মোট পয়েন্ট হবে ১০, আর হাতে থাকবে মাত্র একটি ম্যাচ, কারণ তারা ইতিমধ্যে ১১টি ম্যাচ খেলেছেন। অপরদিকে Rajshahi Kings জিতলে তাদের মোট ১২ পয়েন্ট হবে, সেক্ষেত্রে চাপে পড়েছেন Dhaka Dynamites. Dhaka Dynamites এর হাতে আছে মাত্র ১টি ম্যাচ এবং তাদের মোট পয়েন্ট ১২ রয়েছে। তাই বলা চলে আগামী ৩৯-তম ম্যাচে Comilla Victorians এর সাথে জয়ের কোন বিকল্প নেই তাদের হাতে।

BPl Point table

ডেলপোর্ট। পনের বলে ২১ রান তোলেন শাজাত ডেলপোর্ট ৫৭ বলে ৭১ রান তোলেন। মুশফিকুর রহিম ২৪ বলে ৪৩ রানের একটি রিনিংস খেলেন। আন্ড্র রাসেল ২টি এবং শুনীল নারাইন ২টি উইকেট নেন। শেষ পর্যন্ত ১৭৪ রানে থামে  চিটাগাং, জবাব দিতে নেমে ঢাকা শুরু থেকেই উইকেট হারায়, বিপর্যয় সামাল দেন সাকিবাল হাসান এবং নুরুল হাসান সোহান। সোহান ২৩ বলে ৩৩ রান তোলেন এরপর আন্ড্র রাসেল ২৩ বলে ৩৯ রান তুলে রান বলের  ব্যবধান কমে আনেন। সাকিব শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করে ৪২ বলে ৫৩ রান করে আউট হয়ে যান। ২০ ওভার ব্যাট করে ১৬৩ রান তোলে ঢাকা, ১১ রানের জয় পায় চিটাগাং, চিটাগাং শেষ চার নিশ্চিত করেছে এ জয় দিয়ে, কিন্তু ঢাকার এখনো অপেক্ষা করতে হচ্ছে বাকি ম্যাচ গুলোর।

বাংলাদেশের জাতীয় দলের পেস বোলার রুবেল হোসেন। তিনি নিউজিল্যান্ড সফরের দলের অন্তর্ভূক্ত একজন বোলার, নিউজিল্যান্ড এর মাটিতে যে কন্ডিশন সেখানে পেস বোলারদের জন্য বাড়তি সুবিধা থেকে থাকে, নিউজিল্যান্ড সফরে